• শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
ফের আশা জাগাচ্ছে লালদিয়া চর কনটেইনার টার্মিনাল ‘মাই লকারে’ স্মার্টযাত্রা আগামী সপ্তাহে থাইল্যান্ড সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতির ওপর নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ব্যাংকের আমানত বেড়েছে ১০.৪৩ শতাংশ বঙ্গবাজারে দশতলা মার্কেটের নির্মাণ কাজ শুরু শিগগিরই বেঁচে গেলেন শতাধিক যাত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব না খাটানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর মুজিবনগর দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী সলঙ্গায় ১০৭ বছরেও জীবন যুদ্ধ শেষ হয়নি বৃদ্ধা ডালিম খাতুনের দ্বাদশ সংসদের দ্বিতীয় অধিবেশন বসছে ২ মে আপাতত মার্জারে যাচ্ছে ১০ ব্যাংক, এর বাইরে নয়: বাংলাদেশ ব্যাংক রাজধানীর অতি ঝুঁকিপূর্ণ ৪৪ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভবন খালির নির্দেশ চলতি অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি হবে ৬.১ শতাংশ কৃচ্ছ্রসাধনে আগামী বাজেটেও থোক বরাদ্দ থাকছে না নতুন যোগ হচ্ছে ২০ লাখ দরিদ্র প্রার্থী হচ্ছেন বিএনপি জামায়াত নেতারাও কিস্তির সময় পার হলেই মেয়াদোত্তীর্ণ হবে ঋণ বিভেদ মেটাতে মাঠে আওয়ামী লীগ নেতারা

১০ নভেম্বরের মধ্যে ইন্টারনেটের দাম কমানোর নির্দেশ

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ২১ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : বুধবার, ৮ নভেম্বর, ২০২৩

তিন দিনের ইন্টারনেট প্যাকেজের যে দাম ছিল, সাত দিন মেয়াদি প্যাকেজেও সেই একই দাম নিতে অপারেটরদের নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। মঙ্গলবার (৭নভেম্বর) বিটিআরসির সিস্টেমস অ্যান্ড সার্ভিসেস বিভাগের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এস এম রেজাউর রহমান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে অপারেটরদের এ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, নতুনভাবে প্রচলন করা বিভিন্ন মেয়াদের ইন্টারনেট প্যাকেজের দাম গ্রাহকদের মধ্যে অসন্তোষ, হতাশা ও ক্ষোভের জন্ম দিয়েছে। তাই তিন দিনের প্যাকেজের যে দাম ছিল, সেই দামেই সাত দিনের মেয়াদ দিতে হবে। দাম বাড়ানো যাবে না। সিদ্ধান্তটি ১০ নভেম্বর রাত ১২টার মধ্যে কার্যকর করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে চিঠিতে।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে,  তিন দিন মেয়াদের ইন্টারনেট প্যাকেজের দাম ও পরিমাণ (ভলিউম) অপরিবর্তিত রেখে শুধু মেয়াদ বাড়িয়ে ৭ দিন করার কথা বলা হয়। অর্থাৎ মেয়াদ বাড়ানো হলেও প্যাকেজের দাম বাড়ানো যাবে না। ৩০ দিন ও অনির্দিষ্ট মেয়াদের প্যাকেজের দামও বাড়ানো যাবে না।

গত ১৫ অক্টোবর বিটিআরসির নির্দেশে অপারেটরগুলো  ৩ ও ১৫ দিনের মেয়াদের ইন্টারনেট প্যাকেজ বাদ দিয়ে দেয়। ফলে রয়ে যায় শুধু ৭, ৩০ ও অনির্দিষ্ট মেয়াদের ইন্টারনেট প্যাকেজ। এরপর অপারেটরগুলো নতুন যে প্যাকেজ আনে, তাতে দেখা যায়, মানুষের ব্যয় বেড়ে গেছে। অপারেটরগুলো আগে থেকেই বলছিল, ৬৯ শতাংশ গ্রাহক তিন দিনের ইন্টারনেট প্যাকেজ ব্যবহার করেন। এটা বন্ধ করলে ইন্টারনেটের দাম ও গ্রাহকের ব্যয় বাড়বে। বিপরীতে বিটিআরসির যুক্তি ছিল, ইন্টারনেটের অনেক প্যাকেজের কারণে গ্রাহক বিভ্রান্ত হন।

ইন্টারনেট প্যাকেজের দাম বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ৫ নভেম্বর বিটিআরসির কার্যালয়ে টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের সভাপতিত্বে একটি সভা হয়। বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এবং মোবাইল অপারেটরদের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক সূত্র জানিয়েছে, এতে মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার দাম বেড়ে যাওয়া প্রসঙ্গে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ইন্টারনেটের দাম বাড়ুক, সেটা তিনি চান না।

তিন দিনের প্যাকেজ বন্ধ করায় অপারেটররা অসন্তুষ্ট। তারা নানাভাবে বিষয়টি নিয়ে সমঝোতা করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তাতে সাড়া পাওয়া যায়নি। অপারেটরদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, এখন মূল্যস্ফীতি অত্যন্ত বেশি। এ সময়ে তিন দিনের প্যাকেজ বন্ধ হলে ইন্টারনেটের পেছনে মানুষের বাড়তি ব্যয় করতে হবে। বরং সিদ্ধান্তটি মূল্যস্ফীতি কমার পর নেওয়া যেতে পারে। সরকার অবশ্য তাতে কান দেয়নি।

মোবাইল অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটব বলেছে, প্যাকেজ কমানো হলে দাম বাড়ার আশঙ্কার কথা বারবার বলা হয়েছিল। প্যাকেজের মূল্য নির্ধারণের পদ্ধতির কারণেই তা হওয়ার কথা। বলা বাহুল্য, পদ্ধতিগত কারণে অপারেটররা যেকোনো নতুন ‘ট্যারিফ’ (মূল্যহার) গ্রাহকদের দেওয়ার আগে নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন নেয়। তাই মোবাইল অপারেটররা সরকারকে সহযোগিতা করছে না, এ ধরনের কোনো ইঙ্গিত প্রকাশ করা সঠিক হবে না। অ্যামটব আরও বলেছে, প্যাকেজের মূল্য নির্ধারণে নিয়ন্ত্রক সংস্থার অধিকতর হস্তক্ষেপ হিতে বিপরীত হবে বলে আমরা মনে করি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর