• রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
দেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীর দুদিন বন্ধের পর আজ থেকে মেট্রোরেল চালু ইন্টার্ন চিকিৎসকদের ভাতা বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন ঈদে বেড়েছে রেমিট্যান্স, ফের ২০ বিলিয়ন ডলারের ওপরে রিজার্ভ ট্রেনের টিকিট কালোবাজারি চিরতরে বন্ধ হবে: রেলমন্ত্রী বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি বিশ্ব ব্যাংকের চেয়ে বেশি দেখছে এডিবি বান্দরবানে নারীসহ কেএনএফের ৩ সহযোগী গ্রেফতার সদরঘাটের ঘটনায় দোষীদের শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে: নৌ প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার শেখ হাসিনাকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন নরেন্দ্র মোদি ইউরোপের চার দেশে বাংলাদেশি শ্রমিক নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু ঈদের ছুটিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অপ্রত্যাশিত হাসপাতাল পরিদর্শন আজ উৎসবের ঈদ শেখ হাসিনা দেশ পরিচালনায় মসৃণভাবে এগিয়ে যাচ্ছেন : মার্কিন থিঙ্ক-ট্যাঙ্ক জাহাজে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন জিম্মি নাবিকরা সলঙ্গার ধুবিল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন ইউসিবির সঙ্গে একীভূত হচ্ছে এনবিএল ডেঙ্গু মোকাবেলায় সবার সহযোগিতার আহবান ডিএনসিসি মেয়রের প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা পেলেন রাজশাহী ও খুলনার মেয়র বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি ও শিক্ষার পরিবেশ দুটোই থাকা উচিত: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী গ্রামীণ খেলাধুলা

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ১৪৬ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : বৃহস্পতিবার, ২৮ জুলাই, ২০২২

হারিয়ে যাচ্ছে পল্লী গ্রামের ঐতিহ্যবাহী গ্রামীণ খেলাধুলা । ঐতিহ্যবাহী পল্লীগ্রামের খেলাধুলা ছিল মোরগের লড়াই, কাবাডি, ষাঁড়ের লড়াই, লুকোচুরি, কুতকুত, কানামাছি ইত্যাদি । বেশ নজরে পড়ত এ খেলাগুলো  । এই গ্রামীণ খেলাগুলো এখন নাই বললেই চলে। গ্রামীন খেলাগুলো হারিয়ে যাচ্ছে বর্তমানে ফুটবল ও ক্রিকেট খেলার জনপ্রিয়তার কারণে ।

নতুন প্রজন্মের কাছে গ্রামীণ খেলাধুলাগুলোর ব্যাপারে কথা বললে তারা চিনে না বলে জানায়। স্কুলের বইয়ে যে সমস্ত গোল্লাছুট, দাড়িয়াবান্দা, দড়িরলাফ, এক্কাদোক্কা, ফুলটোকা ও পলানটুকা খেলার মাত্র নাম শুনেছে। এ খেলার নিয়মনীতি জানেও না অনেকে ।

স্কুল শিক্ষার্থীদের কাছে পড়ালেখার চাপ খুব বেশী যার কারনে এখন খেলার সময় পাওয়া যায় না বলে শিক্ষার্থীরা জানান। এমনকি ছুটির দিনে সময় পাওয়া যায় না। যে কারণে এখন মাঠেঘাটে ছাত্রছাত্রীদের খেলাধুলা করতে দেখা যায় না। ফুটবল এবং ক্রিকেট খেলারই প্রচলন বেশী এখন। তাই অন্য খেলায় তাদের আগ্রহ নেই।

পল্লীগ্রামের হাডুডু, বৌচি, কানামাছি, লাঠিখেলা, সাঁতার বাইস, গানের কলি, চোর-পুলিশ, কিলোয়ার, দৌড়, লৌহ/বর্ষা নিপে, সাত পাতা, জামাই বৌ,চিতল খেলা, পুতুল খেলা, গোস্ত খেলা, লাটিম খেলা, মুলা খেলা, বাঘ-বকরি ও বালিশ খেলা ইত্যাদি খেলা অহরহ দেখা গেছে।

এ যুগের ছেলে-মেয়েরা এসব খেলার নামও জানে না। উপরোক্ত খেলার স্থানে দখল করে আছে বাস্কেটবল, ভলিবল, কেরাম বোর্ড, দাবা এবং ভিডিও গেম্স।  তখনকার ঐতিহ্যবাহি প্রতিযোগিতা ছিল নৌকা বাইচ। আর এ প্রতিযোগিতা হতো বিভিন্ন গ্রামের মধ্যে।

তখন এ খেলা দেখতে নদীর তীরে হাজার হাজার দর্শকদের আনাগুনা ভীড় থাকত। এখন আর এগুলোর পরিবেশ নেই। যার কারণে উক্ত খেলাগুলো আজ বিলুপ্তির পথে। এছাড়া ছেলেমেয়েরা বর্তমান তথ্য প্রযুক্তির যুগে টিভির সামনে বসে সময় কাটায়। এখনকার ছেলেমেয়রা অবসর সময়ে কম্পিউটার ও মোবাইল গেম, ক্রিকেট খেলা দেখা এবং ফুটবল খেলা দেখে সময় কাটিয়ে দেয়। অন্যদিকে, কোন কোন কিশোরেরা, ব্লগিং, ফেসবুক চ্যাটিং, মোবাইলে কলিং এবং বিভিন্ন কুরুচিপূর্ণ ওয়েবসাইট ব্রাউজিং করে সময় কাটাচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর