• রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
দেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীর দুদিন বন্ধের পর আজ থেকে মেট্রোরেল চালু ইন্টার্ন চিকিৎসকদের ভাতা বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন ঈদে বেড়েছে রেমিট্যান্স, ফের ২০ বিলিয়ন ডলারের ওপরে রিজার্ভ ট্রেনের টিকিট কালোবাজারি চিরতরে বন্ধ হবে: রেলমন্ত্রী বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি বিশ্ব ব্যাংকের চেয়ে বেশি দেখছে এডিবি বান্দরবানে নারীসহ কেএনএফের ৩ সহযোগী গ্রেফতার সদরঘাটের ঘটনায় দোষীদের শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে: নৌ প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার শেখ হাসিনাকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন নরেন্দ্র মোদি ইউরোপের চার দেশে বাংলাদেশি শ্রমিক নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু ঈদের ছুটিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অপ্রত্যাশিত হাসপাতাল পরিদর্শন আজ উৎসবের ঈদ শেখ হাসিনা দেশ পরিচালনায় মসৃণভাবে এগিয়ে যাচ্ছেন : মার্কিন থিঙ্ক-ট্যাঙ্ক জাহাজে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন জিম্মি নাবিকরা সলঙ্গার ধুবিল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন ইউসিবির সঙ্গে একীভূত হচ্ছে এনবিএল ডেঙ্গু মোকাবেলায় সবার সহযোগিতার আহবান ডিএনসিসি মেয়রের প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা পেলেন রাজশাহী ও খুলনার মেয়র বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি ও শিক্ষার পরিবেশ দুটোই থাকা উচিত: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সিরাজগঞ্জে রোপা আমনের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ৫৬ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২২

সিরাজগঞ্জে মৌসুমি রোপা আমন ধান কাটা এখন পুরোদমে শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যেই এ নতুন ধান হাট বাজারে উঠেছে। এ ধান চাষে বাম্পার ফলনসহ এখন বাজারমূল্য ভাল থাকায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, এবার জেলার ৯টি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ৭৪ হাজার ৬৭০ হেক্টর জমিতে এ মৌসুমি রোপা আমন ধানের চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। কৃষকেরা এ লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে এ রোপা আমন ধান চাষাবাদ করেছে।

এ রোপা আমন ধান সবচেয়ে বেশি চাষাবাদ হয়েছে জেলার শস্যভান্ডার খ্যাত তাড়াশ, উল্লাপাড়া, রায়গঞ্জ, শাহজাদপুর, কামাখন্দ ও সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে। বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর থেকেই কৃষকেরা বীজতলা তৈরি করে ধানের বীজ বপন করে এবং আগষ্ট মাসের মাঝামাঝি থেকে এ ধানের চারা জমিতে রোপন করে। এ বছর কৃষকেরা ব্রি ধান-৯০,৭৫,৮৭,৪৯, বিনা ধান-১৭ ও হাইব্রিডসহ নানা জাতের উচ্চ ফলনশীল ধান চাষাবাদ করেছে। অনেক কৃষক ব্যাংক ও মহাজনের ঋণ নিয়ে এ চাষাবাদ করেছে। এ চাষাবাদে সার ও সেচসহ অন্যান্য খরচ বেশি হলেও আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় বাম্পার ফলন হয়েছে। যে দিকে তাকানো যায় সেই দিকেই মাঠ ভরা এই সোনালী ফসল কাটা শুরু হয়েছে। বিশেষ করে গত সপ্তাহের প্রথম থেকে জেলার বিভিন্ন স্থানে এ ধান কাটা পুরোদমে শুরু হয়েছে। এ জেলার বিভিন্ন হাট বাজারে উঠেছে এ ধান এবং ইতিমধ্যেই অনেক ব্যবসায়ী ধান কেনাও শুরু করেছে।

বর্তমানে হাটবাজারে প্রতিমণ ধান গড়ে ১৩০০ থেকে ১৪০০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। স্থানীয় আর্দশ কৃষকেরা বলেছেন, এ ধান চাষাবাদসহ কাটা মাড়াই খরচ বাদে অনেটাই লাভ হচ্ছে। কারণ এ ধান চাষাবাদে এবার বাম্পার ফলন হয়েছে এবং এখন বাজারমূল্য ভাল পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া ধান মাড়াই শেষে খড়ের দামও কম নয়। ইতিমধ্যেই খড় ব্যবসায়ীরা হাট বাজারসহ গ্রামগঞ্জেও ঘুরে এ খড় ক্রয় করছে। সব মিলে এবার কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে।

এ বিষয়ে জেলা কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক বাবুল কুমার সূত্রধর বলেন, এবার মৌসুমি রোপা আমন চাষাবাদে সংশ্লিষ্ট কৃষি বিভাগ থেকে কৃষকদের যথাসময়ে পরার্মশ দেয়া হয়। এ পরার্মশে কৃষকেরা এ চাষাবাদে ঝুকে পড়ে।  বিশেষ করে আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এ ধান চাষে বাম্পার হয়েছে। ইতিমধ্যেই জেলায় প্রায় ৫০% ধান কাটা হয়েছে এবং ২/১ সপ্তাহের মধ্যে ধান কাটা শেষ হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর