• শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৫৪ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
এবার চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় জ্বালানি তেল যাবে পাইপ লাইনে কাতারের আমির আসছেন সোমবার রাজস্ব ফাঁকি ঠেকাতে ক্যাশলেস পদ্ধতিতে যাচ্ছে এনবিআর বাংলাদেশে দূতাবাস খুলছে গ্রিস বঙ্গবন্ধু টানেলে পুলিশ-নৌবাহিনী-ফায়ার সার্ভিসের জরুরি যানবাহনের টোল মওকুফ সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীতে আসছেন আরও ৪ লাখ মানুষ ৫০ বছরে দেশের সাফল্য চোখে পড়ার মতো চালের বস্তায় জাত, দাম উৎপাদনের তারিখ লিখতেই হবে মন্ত্রী-এমপির প্রার্থীদের সরে দাঁড়ানোর নির্দেশ প্রাণী ও মৎস্যসম্পদ উন্নয়নে বেসরকারি খাত এগিয়ে আসুক ফের আশা জাগাচ্ছে লালদিয়া চর কনটেইনার টার্মিনাল ‘মাই লকারে’ স্মার্টযাত্রা আগামী সপ্তাহে থাইল্যান্ড সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতির ওপর নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ব্যাংকের আমানত বেড়েছে ১০.৪৩ শতাংশ বঙ্গবাজারে দশতলা মার্কেটের নির্মাণ কাজ শুরু শিগগিরই বেঁচে গেলেন শতাধিক যাত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব না খাটানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর মুজিবনগর দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী

সাম্প্রদায়িক শক্তিকে মাথা উঁচু করতে দেব না: প্রধান বিচারপতি

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ৪৬ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০২৩

দেশে কোনো সাম্প্রদায়িক শক্তিকে মাথা উচু করে দাঁড়াতে দেয়া হবে না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।বৃহস্পতিবার সরস্বতী পূজা উপলক্ষে সুপ্রিম কোর্ট কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির বিজয়া পুর্নর্মিলনী ও বাণী অর্চনা উদযাপন পরিষদের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আসুন ধর্মের স্পিরিট ধারণ করে আমরা সৎ থাকবো, দুর্নীতির কাছে যাব না, আমরা অর্থপাচার করব না। আমরা সব ধর্মের মানুষ মিলে এই দেশকে গড়ে তুলব। কোনো সাম্প্রদায়িক শক্তিকে আমরা মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে দেব না।’

এ সময় ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে বিশ্বে যে পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে তার প্রেক্ষাপটে ব্যয় সংকোচন নীতি অনুসরণ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন,‘আমরা ব্যয় সংকোচন নীতি অনুসরণ করব। আমরা মিত্যবায়ী হব।’

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমাদের সংবিধানের মূল একটি নীতি হলো ধর্মনিরপেক্ষতা, যেটা সংশোধনের ক্ষমতা জাতীয় সংসদেরও নাই। আর এই ধর্মনিরপেক্ষতা বলতে আমি বুঝি হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান আমরা সবাই বাংলার, এই মাটি সবার।

‘সবাই এক সঙ্গে বসবাস করবে, এটা ধর্মনিরপেক্ষতার স্পিরিট। এখানে হীনমন্যতার কিছু নাই। এটাকে যারা উসকাতে চান, তারা একাত্তর সালের চেতনাকে বিশ্বাস করে না।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের আইন, বাংলাদেশের সংস্কৃতি কেমন হবে সেটা আমাদের সংবিধানে উল্লেখ আছে। কার স্ট্যাটাস কেমন হবে সেটাও উল্লেখ আছে। আমরা কেউ সংখ্যাগরিষ্ট না আবার কেউ সংখ্যালঘুও না।

‘সবাই আমরা এদেশের নাগরিক। সবার পরিচয় আমরা বাঙালি। কেউ নিজেকে সংখ্যালঘু কমিউনিটির লোক হিসেবে ভাববেন না। এটা কখনও ভাবার কোনো অবকাশ নেই।’

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমাদের ইসলামের নবী বিদায় হজের ভাষণে বলে গেছেন, ধর্ম নিয়ে তোমরা বাড়াবাড়ি করো না। ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করার কারণে অনেক জাতি ধবংস হয়ে গেছে।’

হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আপনারা নির্দিধায় এখাসে বসবাস করবেন, কোনো রকম সাম্প্রদায়িকতাকে আমরা কেউ প্রশ্রয় দেব না। আমরা একাত্তরকে ভুলে যাব না। আমরা আমদের শাসনতন্ত্রকে ভুলে যাব না।

‘যত দিন বাংলাদেশ থাকবে, যত দিন শাসনতন্ত্র থাকবে, যত দিন একাত্তর সালের চেতনায় থাকবো ততদিন এই দেশের সব মানুষের অধিকার সমান।’

সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি অডিটোরিয়ামে আয়োজি বাণী অর্চনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি মমতাজ উদ্দিন ফকিরসহ আইনজীবী নেতারা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর