• শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০২:১৫ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
ফের আশা জাগাচ্ছে লালদিয়া চর কনটেইনার টার্মিনাল ‘মাই লকারে’ স্মার্টযাত্রা আগামী সপ্তাহে থাইল্যান্ড সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতির ওপর নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ব্যাংকের আমানত বেড়েছে ১০.৪৩ শতাংশ বঙ্গবাজারে দশতলা মার্কেটের নির্মাণ কাজ শুরু শিগগিরই বেঁচে গেলেন শতাধিক যাত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব না খাটানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর মুজিবনগর দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী সলঙ্গায় ১০৭ বছরেও জীবন যুদ্ধ শেষ হয়নি বৃদ্ধা ডালিম খাতুনের দ্বাদশ সংসদের দ্বিতীয় অধিবেশন বসছে ২ মে আপাতত মার্জারে যাচ্ছে ১০ ব্যাংক, এর বাইরে নয়: বাংলাদেশ ব্যাংক রাজধানীর অতি ঝুঁকিপূর্ণ ৪৪ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভবন খালির নির্দেশ চলতি অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি হবে ৬.১ শতাংশ কৃচ্ছ্রসাধনে আগামী বাজেটেও থোক বরাদ্দ থাকছে না নতুন যোগ হচ্ছে ২০ লাখ দরিদ্র প্রার্থী হচ্ছেন বিএনপি জামায়াত নেতারাও কিস্তির সময় পার হলেই মেয়াদোত্তীর্ণ হবে ঋণ বিভেদ মেটাতে মাঠে আওয়ামী লীগ নেতারা

শিশুকে হত্যার পর মাটিতে পুতে রেখেছিল সৎ মা!

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ২৩০ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : সোমবার, ২৯ আগস্ট, ২০২২

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ৪ বছরের এক শিশু নিখোঁজের ৩দিন পর ঘরের ভেতর মাটি চাপা দেওয়া অবস্থায় তার অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় শিশুটির সৎমাকে আটক করা হয়েছে।

সোমবার (২৯ আগস্ট) বিকেলে উপজেলার দরবেশপুর গ্রামের চৌকিদার বাড়িতে সৎ নানা নানা মোবারক হোসেনের বসতঘর থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানায়, সৎমা কোহিনুর বেগম শিশুটিকে হত্যা করে মাটি চাপা দিয়ে রাখেন। পরে তিনি শিশুটি নিখোঁজ হয়েছে বলে প্রচার চালান।

ওই শিশুর নাম আহম্মদ শাহ। সে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের দক্ষিণ রায়চর জিয়ানগর এলাকার শাহ মিরান হাবীবুল্লাহর ছেলে।

আহম্মদের মায়ের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর অভিযুক্ত কোহিনুরকে বিয়ে করেন হাবীবুল্লাহ। কোহিনুর রামগঞ্জের দরবেশপুর গ্রামের মোবরক হোসেনের মেয়ে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, গত সপ্তাহে স্বামীর বাড়ি হাজীগঞ্জ থেকে শিশুপুত্রকে নিয়ে রামগঞ্জে বাবার বাড়িতে আসেন কোহিনুর। পরে শনিবার বাবার বাড়ি থেকে স্বামীর বাড়িতে গিয়ে শিশুকে পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানান তিনি।

এ অবস্থায় আহম্মেদকে খুঁজে বের করতে খবর দেওয়া হয় চাঁদপুরের ডুবুরি দল ও ফায়ার সার্ভিসকে। তারা আশপাশের পুকুর ও ডোবা-নালায় অনেক খুঁজেও পায়নি তাকে। পরে আহম্মদের বাবা হাবীবুল্লাহ শনিবার হাজীগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। একদিন পর রোববার বিকালে পুলিশ আহম্মদের সৎমা কোহিনুরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে।

জিজ্ঞাসাবাদে কোহিনুর স্বীকার করেন, শিশু আহম্মেদকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর তিনি বাবার বাড়ির রান্নাঘরের মাটির নিচে পুঁতে রেখেছেন। তার তথ্য অনুযায়ী, সোমবার বিকেলে পুলিশ আহম্মদের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

পুলিশের ধারণা, শুক্রবার রাতের কোনো এক সময় আহম্মদকে হত্যা করে মাটিচাপা দেন কোহিনুরসহ অন্যরা।

হাজীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ জোবাইর সৈয়দ বলেন, কোহিনুর শিশুটিকে হত্যার ঘটনা স্বীকার করেছে। পরে রামগঞ্জ থানা পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয়। পুলিশ কোহিনুরের বাবার বসতঘরের মাটি খুঁড়ে শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছে।

লক্ষ্মীপুর সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল রামগঞ্জ) আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদি বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত কোহিনুর আটক আছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর