• বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:৫১ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
ঢাকা-রোম ফ্লাইট: সহযোগিতার আশ্বাস ইতালির রাষ্ট্রদূতের ভারত সীমান্তে চালু হচ্ছে আরেকটি স্থলবন্দর ২৬৩ জন সাংবাদিকের জন্য ২ কোটি ৩ লাখ টাকা অনুমোদন শাহজালাল বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল: এপ্রিলেই শেষ শতভাগ কাজ বাণিজ্যমেলায় ৩৯১ কোটি টাকার রপ্তানি আদেশ বাংলাদেশের সঙ্গে যৌথ প্রতিরক্ষা সামগ্রী উৎপাদনে যেতে চায় ভারত দই বিক্রেতা জিয়াউল হকের স্বপ্ন পূরণের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার ইউরোপ জয় বাংলাদেশ ও ঘানা ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়াতে সম্মত একুশ মাথা নত না করতে শিখিয়েছে ভাষাশহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা শূন্য পদে দ্রুত নিয়োগে জনপ্রশাসনের তাগিদ কক্সবাজার সুগন্ধা সৈকতকে ‘বঙ্গবন্ধু বিচ’ নামকরণের নির্দেশ পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দিয়েছে ভারত দুই শিশুর মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধানে আইইডিসিআর মনোনয়ন বৈধ সব প্রার্থীর শ্রদ্ধা ও স্মরণে প্রস্তুত কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার পরিবর্তন আসছে বিধিমালা ও আচরণবিধিতে সর্বজনীন পেনশন স্কিমে অংশগ্রহণে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশ স্মার্ট ভূমিসেবা বাস্তবায়নে ১০০ দিনের কর্মসূচি নেওয়া হচ্ছে

শতাব্দীর সেরা জয়ে অনন্য উচ্চতায় টাইগাররা

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ১৩৬ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : রবিবার, ১৮ জুন, ২০২৩

আফগানদের বিপক্ষে সাদা পোশাকের প্রথম দেখাতেই হেরেছিল টাইগাররা। ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত সেই ম্যাচে বাংলাদেশকে বড় ব্যবধানে হারিয়েছিল তারা। সেই আফগানিস্তানের বিপক্ষেই শনিবার লিটন বাহিনী ৫৪৬ রানের বড় ব্যবধানে জিতে ইতিহাস গড়েছে।

আফগানদের বিপক্ষে টেস্টের দুই ইনিংসে ১৪৬ ও ১২৪ রানের নান্দনিক ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হয়েছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। ম্যাচে ২৭০ রান করে তামিম ইকবালকে পেছনে ফেলেন তিনি। টেস্টে এক ম্যাচে বাংলাদেশের পক্ষে তামিমের রান ২৩১। এই তালিকায় ২৮১ রান নিয়ে সবার উপরে মুমিনুল হক।

ঢাকা টেস্টের তৃতীয় দিনে আফগানিস্তানকে ৬৬২ রানের লক্ষ্য দিয়ে শনিবার চতুর্থ দিনে ১১৫ রানে গুঁড়িয়ে দিয়ে লিটন বাহিনী ম্যাচ জিতেছে ৫৪৬ রানের বিশাল ব্যবধানে। যা নিজেদের ২৩ বছরের টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসে সবচেয়ে বড় জয়। আর টেস্ট ক্রিকেটের ১৪৬ বছরের ইতিহাসে তৃতীয় বৃহত্তম জয়।

১৯২৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার মাঠেই ইংলিশরা ৬৭৫ রানে জয় পেয়েছিল। এরপর ১৯৩৪ সালে সেই অস্ট্রেলিয়াই ইংল্যান্ডের মাঠে গিয়ে স্বাগতিকদের ৫৬২ রানে হারায়। তবে সে সময় টেস্ট ম্যাচ গড়াতো তিন-চার-পাঁচ কিংবা সীমাহীন দিনে। ১৯৫০ সালের পর পাঁচদিনের টেস্ট ম্যাচের সূচি নির্ধারিত হয়। সেই হিসেবে আধুনিক ক্রিকেটে পাওয়া সবচেয়ে বড় জয়টি টাইগারদের দখলে। চলতি শতাব্দীতেও এটি সবচেয়ে বড়।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে এই টেস্টে নাজমুল হোসেন শান্ত এবং মুমিনুল হকের জোড়া সেঞ্চুরিতে ৬৬২ রানের বিশাল লক্ষ্য দেয় স্বাগতিকরা। সেই রান তাড়ায় সফরকারীরা মাত্র ১১৫ রানেই থেমে যায়। কেবল রানের ব্যবধানেই নয়, বাংলাদেশের স্মরণীয় জয়ের ম্যাচে টাইগাররা রেকর্ডবইয়ে পৃথক একাধিক ক্ষেত্রে নাম তুলেছে। দুই ইনিংস মিলিয়ে মাত্র ৪৩২ বল খেলতে পেরেছে সফরকারীরা। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে যেটি রেকর্ড।

এর আগে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা ২০১৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সর্বনিম্ন ৫৭৬ বলের মধ্যে দুবার অলআউট করেছিল। মিরপুরের সে ম্যাচটি তারা জিতেছিল ইনিংস ও ১৮৪ রানে। সবমিলিয়ে প্রতিপক্ষকে সবচেয়ে কম বলের মধ্যে দুবার অলআউট করে দেয়ার রেকর্ডটি ইংল্যান্ডের। ১৮৯৬ সালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে দুবার অলআউট করতে তাদের লেগেছিল মাত্র ২৪৮ বল।

আফগানদের বিপক্ষে টাইগারদের এই অনন্য রেকর্ড জয়ের পেছনে বড় অবদান দলের পেসারদের। আফগানিস্তানের বিপক্ষে রেকর্ড জয়ের টেস্টে ১৪ উইকেট নিয়েছেন বাংলাদেশের তিন পেসার তাসকিন-এবাদত ও শরিফুল। যা কোন টেস্টে বাংলাদেশ পেসারদের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারের রেকর্ড । আগেরটি ছিল ২০২২ সালে মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১৩ উইকেট নিয়েছিল টাইগার পেসাররা।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে টেস্টে শরিফুল-এবাদত ৫টি করে এবং তাসকিন ৪ উইকেট নেন। ব্যাটার-বোলারদের দুর্দান্ত নৈপুন্যে ঢাকা টেস্টে ইতিহাস গড়া জয় পেয়েছে স্বাগতিকরা। টাইগারদের এত বড় অর্জনে ব্যাট হাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন নাজমুল হোসেন শান্ত।

প্রথম ইনিংসে ১৪৬ ও দ্বিতীয় ইনিংসে ১২৪ রান করে তিনি জিতেছেন ম্যাচসেরার পুরস্কার। এছাড়া সেঞ্চুরি করেছেন মুমিনুল হক। ফিফটি তুলে নিয়েছেন জাকির হাসান, মাহমুদুল হাসান জয় ও লিটন দাস। দুই ইনিংসে নাজমুল হাসান শান্ত করেছেন ২৭০ রান। আফগানিস্তান প্রথম ইনিংসে ১৪৬ এবং দ্বিতীয় ইনিংসে করেছে ১১৫ রান। দুই ইনিংস মিলিয়ে ২৬১ রান। আফগানিস্তানের ব্যাটাররা দুই বার ব্যাট করার সুযোগ পেয়ে ও শান্তকে টেক্কা দিতে পারেনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর