• মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০৪:৫২ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
তথ্যপ্রযুক্তি খাতে করারোপ হচ্ছে না ঢাকায় ব্যাটারিচালিত রিকশা চলতে বাধা নেই টেলিটক, বিটিসিএলকে লাভজনক করতে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ ভারত থেকে ২শ কোচ কেনার চুক্তি বেসরকারি কোম্পানি চালাতে পারবে ট্রেন দেশে মাথাপিছু আয় বেড়ে ২৭৮৪ ডলার ৫ জুন বাজেট অধিবেশন শুরু চালু হচ্ছে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক শান্তি পুরস্কার বুদ্ধ পূর্ণিমা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা বার্তা পাঠ করলেন বিপ্লব বড়ুয়া ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক নিত্যপণ্যের বাজার কঠোর মনিটরিংয়ের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর উত্তরা থেকে টঙ্গী মেট্রোরেলে হবে নতুন ৫ স্টেশন এমপিও শিক্ষকদের জন্য আসছে আচরণবিধি সরকার ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে কাজ করছে: পরিবেশমন্ত্রী বাংলাদেশে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণে আগ্রহী কানাডা মেট্রোরেলে ভ্যাট এনবিআরের ভুল সিদ্ধান্ত ২৫ মে বঙ্গবাজার কমপ্লেক্সের নির্মাণ কাজের উদ্ভোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী সাগরে মাছ ধরা ৬৫ দিন বন্ধ বান্দরবানে যৌথ বাহিনীর অভিযানে তিনজন নিহত বঙ্গবন্ধু ‘জুলিও কুরি’ পদক নীতিমালা মন্ত্রিসভায় উঠছে

মূল্যস্ফীতির হার নির্ধারণে পরিবর্তন আসছে

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ৫৭ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : শুক্রবার, ১৭ মার্চ, ২০২৩

মূল্যস্ফীতি হলো কোনো পণ্য বা সেবার দাম বাড়ার গতির হিসাব, যা করা হয় পণ্য বা সেবার গড় ব্যবহারের ওপর ভিত্তি করে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) মূল্যস্ফীতির এই হিসাবে আমূল পরিবর্তন আনছে। এত দিন এই হিসাব করা হচ্ছিল ২০০৫-০৬ সালকে ভিত্তিবছর ধরে। এখন থেকে ২০২১-২২ সালকে ভিত্তিবছর ধরে এই হিসাব করার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। এর সঙ্গে যুক্ত হবে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) নীতিমালা (২০১২)।

এই পরিবর্তনের বিষয়ে এরই মধ্যে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে। সেখানে থেকে অনুমোদন পেলেই নতুন পদ্ধতিতে মূল্যস্ফীতির হিসাব করবে বিবিএস। সংস্থাটি এরই মধ্যে নতুন পদ্ধতিতে হিসাব করার জন্য পণ্য ও সেবার একটি খসড়া তালিকাও করেছে। বিবিএসের একাধিক কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বিষয়টি জানিয়েছেন।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিবিএসের পণ্য ও সেবার তালিকায় পরিবর্তন আনা জরুরি। দেড় যুগ আগে ইন্টারনেট ব্যবহার বাংলাদেশে তেমন একটা ছিল না। স্মার্টফোন ছিল না বললেই চলে। গত ১৬-১৭ বছরের জীবনযাত্রার অনেক পরিবর্তন হয়েছে। ইন্টারনেট সহজলভ্য হয়েছে। ফেসবুক, মেসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপ এসেছে। প্রবাসে থাকা আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে ভিডিও কলের জন্য ইমো, মেসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপ যেন অপরিহার্য হয়ে গেছে। যাতায়াতের ক্ষেত্রেও পরিবর্তন এসেছে। উবার-পাঠাও তো আছেই। গ্রামগঞ্জে মোটরসাইকেল, ইজি বাইকের সংখ্যা ব্যাপক বেড়েছে। ফলে যাতায়াতে বৈচিত্র্য যেমন এসেছে, খরচও বেড়েছে। অন্যদিকে মানুষের খাদ্যাভ্যাসেও পরিবর্তন এসেছে। তাই এখন নতুন পণ্য ও সেবার তালিকা করে মূল্যস্ফীতির হিসাব করার কথা।

বিবিএস মহাপরিচালক মতিয়ার রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা এখন যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে মূল্যস্ফীতির হিসাবে আরো পরিবর্তন আনছি। এটি আমাদের নিয়মিত কাজ। আগে আমরা ৪২২টি পণ্য ও সেবা ওজন দিয়ে এই হিসাব করতাম, এখন করব ৭০০-এর বেশি পণ্য দিয়ে।’ তিনি জানান, এরই মধ্যে তাঁরা নতুন হিসাবের পদ্ধতিটির একটা খসড়া প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠিয়েছেন। সেটি অনুমোদন হলেই নতুন পদ্ধতিতে মূল্যস্ফীতির হিসাব করবে বিবিএস।

এর আগে আইএমএফের একটি প্রতিনিধিদল ২৬ অক্টোবর ঢাকায় আসে। দলটি ১৫ দিন ঢাকায় অবস্থান করে বাংলাদেশের জন্য আগামীর ঋণ কর্মসূচি এবং নতুন করে দীর্ঘ মেয়াদে ঋণ দিতে অর্থনৈতিক ও আর্থিক খাতের সংস্কার ও নীতি নিয়ে আলোচনা করে। প্রতিনিধিরা কেন্দ্রীয় ব্যাংক, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, বিবিএসের সঙ্গে বৈঠক করেন। পাশাপাশি বাংলাদেশে সরকারের নীতিনির্ধারক এবং অন্যান্য অংশীজনের সঙ্গেও আলোচনা করেন এবং বেশ কিছু নীতিমালা সংস্কারের কথা বলেন। এই আলোচনায় আইএমএফকে মূল্যস্ফীতি গণনায় ভিত্তিবছর পরিবর্তনের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়। এই পরিবর্তিত হিসাবে মানুষের ভোগ ও খরচের প্রবণতা আরো বেশি স্পষ্টভাবে উঠে আসবে বলে প্রত্যাশা করছেন বিবিএসের কর্মকর্তারা।

নতুন পদ্ধতিতে ৭২২ পণ্য ও সেবাকে ১০০ পয়েন্ট ধরে মূল্যস্ফীতিতে এসব পণ্যের অবদান হিসাব করা হবে। এ ক্ষেত্রে চালের অবদান হবে ১৩। বাকি ৭২১টি পণ্য ও সেবার অবদান ৮৭। প্রথমবারের মতো খাদ্যবহির্ভূত পণ্য ও সেবার অবদান ৫০ শতাংশ ছাড়িয়ে যাচ্ছে। এর মানে, মানুষ খাবার কেনার তুলনায় অন্যান্য পণ্য ও সেবা ভোগে খরচ বেশি করছে।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বর্তমান প্রেক্ষাপটে মূল্যস্ফীতির হিসাব করার জন্য নতুন ভিত্তিবছর অবশ্যই দরকার। কারণ আমাদের খাদ্যাভাব পরিবর্তন হয়েছে। পাশাপাশি সেবার মানেও পরিবর্তন এসেছে। তাই খাদ্যপণ্যের তালিকা ব্যাপকভাবে বদলানো উচিত। এখন যে খাদ্যতালিকা আছে, এর ৮০ শতাংশই কার্বোহাইড্রেটজাতীয় খাবার। ক্যালরির পরিবর্তে পুষ্টিমান দিয়ে খাদ্যপণ্যের তালিকা করা উচিত। এ নিয়ে সব অংশীজনের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করা দরকার।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমরা অনেক দিন ধরেই এটি পরিবর্তনের কথা বলে আসছি। সরকার যদি এখন তা বাস্তবায়ন করে তবে তা হবে যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর