বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১২:২৩ অপরাহ্ন

বিশ্ববাজারে সারের পড়তি দামে স্বস্তি, আমদানি হচ্ছে ২ লাখ টন

সিরাজগঞ্জ টাইমস ডেস্ক:
  • সময় কাল : বৃহস্পতিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২২
  • ১৬ বার পড়া হয়েছে

আসছে বোরো মৌসুমে সারের জোগান নিশ্চিতে ২ লাখ ১০ হাজার টন সার ও সারের কাঁচামাল আমদানি করবে সরকার। সংযুক্ত আরব আমিরাত, সৌদি আরব ও কানাডা থেকে কৃষি উৎপাদনের জন্য অতিপ্রয়োজনীয় এসব সামগ্রী আমদানি করা হবে।

সুখবর হচ্ছে, বিশ্ববাজারে দাম কমায় এবার সার আমদানিতে খরচ আগের চেয়ে কম পড়ছে।

সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে বুধবার কৃষি মন্ত্রণালয় ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের এ-সংক্রান্ত দুটি প্রস্তাব অনুমোদন পেয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সাঈদ মাহবুব খান সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে এ বৈঠক হয়। বৈঠক পরবর্তী সংবাদ ব্রিফিংয়ে অর্থমন্ত্রী ছিলেন না।

সাঈদ মাহবুব খান বলেন, ‘ডিএপি ফার্টিলাইজার কোম্পানির জন্য ৩০ হাজার টন ফসফরিক অ্যাসিড আমদানির প্রস্তাব দিয়েছিল বিসিআইসি। এ ধরনের কেনাকাটায় আগেরবার প্রতি টনে ৮২০ ডলার খরচ হয়েছে; এবার খরচ হচ্ছে ৬৭৪ ডলার। সব মিলিয়ে এবার ফসফরিক অ্যাসিড কিনতে খরচ হবে ২১৫ কোটি ১৪ লাখ ৭০ হাজার ৮৮০ টাকা।’

তিনি জানান, সংযুক্ত আরব আমিরাতের ফার্টিগ্লোবাল ডিস্ট্রিবিউশনের কাছ থেকে ১৮৯ কোটি ২৮ লাখ ৪৭ হাজার ৩৬৯ টাকায় ৩০ হাজার টন ইউরিয়া সার কিনতে বিসিআইসির একটি প্রস্তাবও অনুমোদন পেয়েছে। এর আগের লটে প্রতি টনে ৬২৬ দশমিক ৬৭ ডলার খরচ হলেও এবার দাম পড়েছে ৫৯৪ দশমিক ১৭ ডলার।

বিসিআইসির আরেক প্রস্তাবে সৌদি আরবের সাবিক এগ্রিনিউট্রেন্টের কাছ থেকে ৩০ হাজার টন ইউরিয়া সার কেনা হবে। তাতে প্রতি টন সারের দাম পড়ছে ৫৯৪ দশমিক ১৭ ডলার, আগের লটে খরচ হয়েছিল ৬২৫ দশমিক ৮৩ ডলার। এই কেনাকাটায় মোট খরচ হচ্ছে ১৮৯ কোটি ২৮ লাখ ৪৭ হাজার ৩৬৯ টাকা। এর পরের লটে একই দামে সাবিক এগ্রি থেকে আরও ৩০ হাজার টন ইউরিয়া কেনার প্রস্তাবও অনুমোদন করা হয়েছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের প্রতিষ্ঠান বিএডিসি কানাডা থেকে ৫০ হাজার টন এমওপি এবং সৌদি আরব থেকে ৪০ হাজার টন ডিএপি সার কেনার প্রস্তাব দিয়েছিল, যা ক্রয় কমিটির অনুমোদন পেয়েছে।

সাঈদ মাহবুব খান বলেন, ‘আগের কেনাকাটায় প্রতি টন এমওপি সারের জন্য ৮২১ ডলার খরচ করতে হলেও এবার লাগবে ৭৮৮ ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় খরচ হচ্ছে ৪১৬ কোটি ৫৩ লাখ ৬৮ হাজার টাকা।

‘সৌদি আরব থেকে ৪০ হাজার টন ডিএপি সার কিনতে এবার খরচ হচ্ছে ৩০৮ কোটি ৭৮ লাখ ২৪ হাজার ৪০০ টাকা। আগের কেনাকাটায় প্রতি টন ডিএপি সার ৮২৬ দশমিক ৫০ ডলারে কেনা হয়েছিল, এবার দাম কমে দাঁড়িয়েছে ৭২৫ দশমিক ২৫ ডলার।’

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়ে যাওয়ায় গত ১ আগস্ট ইউরিয়া সারের দাম কেজিতে ছয় টাকা বাড়িয়ে দেয় সরকার। ডিলার পর্যায়ে ইউরিয়া সারের সর্বোচ্চ খুচরামূল্য প্রতি কেজি ১৪ থেকে বাড়িয়ে ২০ টাকা এবং কৃষক পর্যায়ে প্রতি কেজি ১৬ থেকে বাড়িয়ে ২২ টাকা পুনর্নির্ধারণ করে সরকার। এখনও এই দামেই বাজারে সার বিক্রি হচ্ছে।

দাম বাড়ানোর কারণ হিসেবে সে সময় ইউরিয়ার ব্যবহার যৌক্তিক পর্যায়ে রাখা এবং বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক বাজারে সারের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধির কথা বলে কৃষি মন্ত্রণালয় বলেছিল, আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি কেজি ইউরিয়ার সারের বর্তমান দাম ৮১ টাকা। এতে ছয় টাকা দাম বাড়ানোর পরও সরকারকে প্রতি কেজিতে ৫৯ টাকা ভর্তুকি দিতে হবে।

ময়মনসিংহ অঞ্চলে হবে ১২টি গ্রিড উপকেন্দ্র

ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে দেশের ময়মনসিংহ অঞ্চলে ১২টি গ্রিড উপকেন্দ্র নির্মাণসংক্রান্ত প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

অতিরিক্ত সচিব সাঈদ মাহবুব বলেন, ময়মনসিংহ অঞ্চলের বিতরণ লাইন উন্নয়নের অংশ হিসেবে সেখানে ৭টি নতুন ৩৩/১১ কেভি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র নির্মাণ, তিনটি উপকেন্দ্র সংস্কার এবং দুটি উপকেন্দ্র ৩৩ কেভিতে সম্প্রসারণের প্রস্তাব দিয়েছিল বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড।

‘বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন, ময়মনসিংহ জোন’ প্রকল্পের জিডি-১ প্যাকেজের পঞ্চম লটের আওতায় বাংলাদেশের আইডিয়াল ইলেক্ট্রিক্যাল এন্টারপ্রাইজকে মোট ১০২ কোটি ৬১ লাখ ৮৬ হাজার ৩৫৯ টাকায় কাজটি দেয়া হয়েছে বলে জানান সাঈদ মাহবুব।

নিউজটি শেয়ার করুন....

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও খবর
এই নিউজ পোর্টাল এর  কোন লেখা,ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি ও দণ্ডনীয় অপরাধ।
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102