• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১১:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
তথ্যপ্রযুক্তি খাতে করারোপ হচ্ছে না ঢাকায় ব্যাটারিচালিত রিকশা চলতে বাধা নেই টেলিটক, বিটিসিএলকে লাভজনক করতে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ ভারত থেকে ২শ কোচ কেনার চুক্তি বেসরকারি কোম্পানি চালাতে পারবে ট্রেন দেশে মাথাপিছু আয় বেড়ে ২৭৮৪ ডলার ৫ জুন বাজেট অধিবেশন শুরু চালু হচ্ছে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক শান্তি পুরস্কার বুদ্ধ পূর্ণিমা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা বার্তা পাঠ করলেন বিপ্লব বড়ুয়া ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক নিত্যপণ্যের বাজার কঠোর মনিটরিংয়ের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর উত্তরা থেকে টঙ্গী মেট্রোরেলে হবে নতুন ৫ স্টেশন এমপিও শিক্ষকদের জন্য আসছে আচরণবিধি সরকার ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে কাজ করছে: পরিবেশমন্ত্রী বাংলাদেশে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণে আগ্রহী কানাডা মেট্রোরেলে ভ্যাট এনবিআরের ভুল সিদ্ধান্ত ২৫ মে বঙ্গবাজার কমপ্লেক্সের নির্মাণ কাজের উদ্ভোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী সাগরে মাছ ধরা ৬৫ দিন বন্ধ বান্দরবানে যৌথ বাহিনীর অভিযানে তিনজন নিহত বঙ্গবন্ধু ‘জুলিও কুরি’ পদক নীতিমালা মন্ত্রিসভায় উঠছে

বিনামূল্যে বীজ ও সার পাবেন ১৭ লাখ কৃষক

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ১৮১ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : সোমবার, ৭ নভেম্বর, ২০২২

আসন্ন রবি মৌসুমে সারা দেশের প্রায় ১৭ লাখ ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষককে বীজ ও সার বিনামূল্যে সরবরাহ করবে সরকার। গম, ভুট্টা, সরিষা, সূর্যমুখী, চিনাবাদাম, সয়াবিন, শীতকালীন পেঁয়াজ, মুগ, মসুর ও খেসারির মতো রবি ফসলের চাষ ও উৎপাদন বাড়াতে এ উদ্যোগ নিয়েছে কৃষি মন্ত্রণালয়। কৃষি মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, রবি ফসল চাষে আগে থেকেই বিনামূল্যে বীজ ও সার সরবরাহ করা হচ্ছে। তবে এ বছর বেশি পরিমাণে সরবরাহ করা হবে। কারণ রবি মৌসুমে যেসব ফসল চাষ হয়, তার সবকটিতে বাংলাদেশের আমদানি নির্ভরতা রয়েছে। সম্প্রতি এসব ফসলের দামও বেড়েছে। এজন্য আমদানি ব্যয়ে কমানো ও স্থানীয় উৎপাদন বাড়াতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। গত অর্থবছরের তুলনায় প্রায় ৩০ কোটি টাকা বেশি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে এ খাতে। পাশাপাশি প্রায় এক লাখ কৃষককে নতুন করে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বলাই কৃষ্ণ হাজরা এ বিষয়ে বলেন, চাষ ও উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। চলতি মাসের মধ্যেই এসব বীজ ও সার বিতরণ শেষ করা হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ৬৪ জেলার ১৬ লাখ ৭০ হাজার ৫০০ কৃষক এ সুবিধা পাবেন। এজন্য সরকারের ব্যয় হবে ১৩৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে বীজ বাবদ ব্যয় হবে ৮০ কোটি ৮০ লাখ টাকা। আর সার বাবদ ব্যয় হবে ৪৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। কৃষকদের ডিএপি ও এমওপি সার দেওয়া হবে। এ ছাড়া ১০ কোটি ৩৭ লাখ টাকা ব্যয় হবে পরিবহনসহ অন্যান্য কার্যক্রমে।

তেলজাতীয় ফসলের চাষ বাড়ানোর জন্য যেসব নতুন এলাকার চাষিরা এ ধরনের চাষ করবেন তাদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

একজন কৃষক এক বিঘা জমির জন্য ২০ কেজি করে গমবীজ অথবা ২ কেজি হাইব্রিড ভুট্টাবীজ পাবেন। প্রতি বিঘায় এক কেজি করে সরিষাবীজ, এক কেজি করে সূর্যমুখী হাইব্রিড বীজ, ১০ কেজি করে চীনা বাদাম ও ৮ কেজি করে সয়াবিনবীজ দেওয়া হবে। পেঁয়াজ চাষের জন্য এক কেজি করে শীতকালীন পেঁয়াজের বীজ দেওয়া হবে। বিঘাপ্রতি ৫ কেজি মসুর ও মুগ এবং ৮ কেজি খেসারিবীজ দেওয়া হবে।  একটি পরিবার এক ধরনের বীজই পাবেন। গম, সরিষা, সূর্যমুখী,

সয়াবিন ও শীতকালীন পেঁয়াজ চাষের জন্য প্রতি ৫ জনের একটি গ্রুপকে ৫০ কেজির এক বস্তা এমওপি ও এক বস্তা ডিএপি সার দেওয়া হবে। অর্থাৎ চাষিরা বিঘাপ্রতি ১০ কেজি করে এমওপি ও ডিএপি সার পাবেন। আর ভুট্টা চাষের জন্য বিঘাপ্রতি ২০ কেজি ডিএপি ও ১০ কেজি এমওপি সার দেওয়া হবে।

জেলা কৃষি পুনর্বাসন বাস্তবায়ন কমিটির মাধ্যমে এসব বীজ ও সার বিতরণ করা হবে। উপজেলা সদর থেকে এসব বীজ ও সার বিতরণ করা হবে। এসব বীজ বিএডিসি থেকে সংগ্রহ করা হবে। কোনো কারণে বিএডিসি বীজ সরবরাহ করতে না পারলে বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্পভুক্ত এসএমই কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি সংগ্রহ করা হবে।

সবচেয়ে বেশি বীজ পাবেন দিনাজপুর জেলার কৃষকরা। এই জেলার ৬৫ হাজার ২২০ জন কৃষক এ সুবিধা পাবেন। এ ছাড়া জামালপুর, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, নওগাঁ, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, কুষ্টিয়া, রাজবাড়ী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, রংপুর, গাইবান্ধা, নোয়াখালী, ঝিনাইদহ, ফরিদপুর, কিশোরগঞ্জ ও শেরপুর জেলার উল্লেখযোগ্যসংখ্যক কৃষক এ সুবিধা পাবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর