• শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ১২:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সলঙ্গার ধুবিল মেহমানশাহী উচ্চ বিদ্যালয়ে পরিক্ষার আগেই অর্থ বানিজ্যের অভিযোগ সিলেট-সুনামগঞ্জে বন্যাদুর্গতদের পাশে আনসাররা কৃষিতে বকেয়া ভর্তুকি : ১০ হাজার কোটির বন্ড ইস্যু করছে সরকার ঈদকে ঘিরে রেমিট্যান্স বেড়েছে দেশে শেখ হাসিনার দিল্লি সফরের তিন প্রধান কারণ ঈদের ২য় দিনে শতভাগ কোরবানির বর্জ্য অপসারণ ডিএনসিসির বিসিক চামড়া শিল্প নগরীর সিইটিপি প্রস্তুত : শিল্প সচিব আজ থেকে নতুন সময়সূচিতে চলবে সরকারি অফিস হাসপাতাল ভিজিট করে ডাক্তার হিসেবে লজ্জা লাগছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবার আছাদুজ্জামানের দুর্নীতি তদন্তে নামছে দুদক? কবি অসীম সাহার মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সেন্টমার্টিন দ্বীপ নিয়ে স্বার্থান্বেষী মহলের গুজবে বিভ্রান্ত হবেন না: আইএসপিআর ঈদ কেন্দ্র করে বাড়ল রিজার্ভ চামড়া কেনায় মিলছে ২৭০ কোটি টাকা ঋণ দুই সিটিতে কুরবানির বর্জ্য অপসারণে প্রস্তুত ১৯ হাজার কর্মী দুর্নীতি করে, কাউকে ঠকিয়ে সফল হওয়া যায় না: এলজিআরডি মন্ত্রী আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী বিজিবি পুলিশকে সতর্ক থাকার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে স্মার্ট হচ্ছে কৃষি জুনের ১২ দিনে প্রবাসীরা ১৪৬ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন

পুলিশের নিয়ন্ত্রণকক্ষে যুক্ত হচ্ছে বেসরকারি সিসি ক্যামেরা

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ৭৭ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : শুক্রবার, ৯ জুন, ২০২৩

রাজধানীতে অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও অপরাধীদের শনাক্ত করতে এবার ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা (সিসি ক্যামেরা) আওতায় আনতে যাচ্ছে গোটা রাজধানীকে। তবে এটা সরকারি টাকা খরচ করে নয়, সাধারণ মানুষের বাসাবাড়ি, মার্কেট, দোকানে লাগানো সিসিটিভির সংযোগ পুলিশের নিয়ন্ত্রণকক্ষের সঙ্গে যুক্ত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে কাজও শুরু হয়ে গেছে। গুলশান, বনানী, বারিধারা, নিকেতন, তেজগাঁওসহ আশপাশের এলাকা নিয়ন্ত্রণকক্ষের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। এতে প্রায় ২ হাজার সিসিটিভি নিয়ন্ত্রণকক্ষের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। পুরো রাজধানীতে এমনভাবে ৫০ হাজার সিসিটিভিকে যুক্ত করার কাজ চলছে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক ইত্তেফাককে বলেন, গুলশান, বনানী, বারিধারা এলাকায় বেসরকারি উদ্যোগে লাগানো যে সিসিটিভি আছে, সেগুলো আমাদের কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণকক্ষের সঙ্গে সংযুক্ত করা হয়েছে। একইভাবে সারা ঢাকা শহরে বেসরকারি উদ্যোগে যেসব সিসিটিভি লাগানো আছে, সেগুলোর যদি একটি করে কানেকশন আমাদের কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণকক্ষে দেয়, তাহলে পুরো রাজধানীর অন্তত ৮০ ভাগ এলাকা আমাদের নেটওয়ার্কের মধ্যে চলে আসবে। কমিউনিটির সহায়তায় অর্থাৎ জনগণের সহায়তায় আমরা নতুন কোনো প্রজেক্ট না করেও পুরো ঢাকা শহরকে সিসিটিভির মধ্যে আনতে চেষ্টা করছি।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, ইতিমধ্যে যে সিসিটিভিগুলো যুক্ত করা হয়েছে, তাদের আপগ্রেড করার জন্য অনুরোধ করা শুরু করেছিল। অনেকেই তাদের সিসিটিভি আপগ্রেড করেছেন। ক্যামেরাগুলো আপগ্রেড করা হলে এখান থেকেই লাইভ ফিড পাওয়া যাবে। পাশাপাশি ফেস ডিটেকশন, স্বয়ংক্রিয় অ্যালার্ম সিস্টেম এবং ট্রাফিক আইন ভঙ্গকারী গাড়িগুলোর নম্বর প্লেটও শনাক্ত করা সম্ভব হবে। এই ক্যামেরাগুলোতে ১১ ধরনের বিশেষ বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

পুলিশ কমিশনার বলেন, ট্রাফিক আইন ভঙ্গকারী গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আমরা পৃথক একটা প্রকল্প নিচ্ছি। সেটা আলাদাভাবে রাস্তায় সিসিটিভি বসানো হবে। ইতিমধ্যেই ঢাকা শহরের ১৪টি প্রবেশ ও বের হওয়ার পয়েন্টে সিসিটিভি স্থাপন করা হয়েছে। গুলশান এলাকার সিসিটিভি মনিটরিংয়ের জন্য গুলশানে একটি নিয়ন্ত্রণকক্ষ তৈরি করা হয়েছে। এর বাইরে আবদুল গনি রোডে সচিবালয়ের উল্টোদিকে কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণকক্ষ রয়েছে। জানা গেছে, ঢাকা মহানগরীর ২২১ পয়েন্টে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের মনিটরিং সিস্টেমে এখন প্রায় ৬৮০টি সিসিটিভি রয়েছে। এছাড়া ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় ১৯৯টি স্থানে ৬২৫টি সিসিটিভি রয়েছে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক ইত্তেফাককে বলেন, গুলশান, বনানী, বারিধারা এলাকায় বেসরকারি উদ্যোগে লাগানো যে সিসিটিভি আছে, সেগুলো আমাদের কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণকক্ষের সঙ্গে সংযুক্ত করা হয়েছে। একইভাবে সারা ঢাকা শহরে বেসরকারি উদ্যোগে যেসব সিসিটিভি লাগানো আছে, সেগুলোর যদি একটি করে কানেকশন আমাদের কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণকক্ষে দেয়, তাহলে পুরো রাজধানীর অন্তত ৮০ ভাগ এলাকা আমাদের নেটওয়ার্কের মধ্যে চলে আসবে। কমিউনিটির সহায়তায় অর্থাৎ জনগণের সহায়তায় আমরা নতুন কোনো প্রজেক্ট না করেও পুরো ঢাকা শহরকে সিসিটিভির মধ্যে আনতে চেষ্টা করছি।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, ইতিমধ্যে যে সিসিটিভিগুলো যুক্ত করা হয়েছে, তাদের আপগ্রেড করার জন্য অনুরোধ করা শুরু করেছিল। অনেকেই তাদের সিসিটিভি আপগ্রেড করেছেন। ক্যামেরাগুলো আপগ্রেড করা হলে এখান থেকেই লাইভ ফিড পাওয়া যাবে। পাশাপাশি ফেস ডিটেকশন, স্বয়ংক্রিয় অ্যালার্ম সিস্টেম এবং ট্রাফিক আইন ভঙ্গকারী গাড়িগুলোর নম্বর প্লেটও শনাক্ত করা সম্ভব হবে। এই ক্যামেরাগুলোতে ১১ ধরনের বিশেষ বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

পুলিশ কমিশনার বলেন, ট্রাফিক আইন ভঙ্গকারী গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আমরা পৃথক একটা প্রকল্প নিচ্ছি। সেটা আলাদাভাবে রাস্তায় সিসিটিভি বসানো হবে। ইতিমধ্যেই ঢাকা শহরের ১৪টি প্রবেশ ও বের হওয়ার পয়েন্টে সিসিটিভি স্থাপন করা হয়েছে। গুলশান এলাকার সিসিটিভি মনিটরিংয়ের জন্য গুলশানে একটি নিয়ন্ত্রণকক্ষ তৈরি করা হয়েছে। এর বাইরে আবদুল গনি রোডে সচিবালয়ের উল্টোদিকে কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণকক্ষ রয়েছে। জানা গেছে, ঢাকা মহানগরীর ২২১ পয়েন্টে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের মনিটরিং সিস্টেমে এখন প্রায় ৬৮০টি সিসিটিভি রয়েছে। এছাড়া ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় ১৯৯টি স্থানে ৬২৫টি সিসিটিভি রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর