বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১২:৪১ অপরাহ্ন

ঢাকা মূখী টঙ্গী উত্তরা উড়াল সড়ক আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন

সিরাজগঞ্জ টাইমস ডেস্ক:
  • সময় কাল : সোমবার, ৭ নভেম্বর, ২০২২
  • ৩১ বার পড়া হয়েছে

রবিবার টঙ্গী স্টেশন রোড থেকে উত্তরা রাজউক কলেজ পর্যন্ত ঢাকা মূখী উড়াল সড়ক যানচলাচলের জন্য সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের মাধ্যমে খুলে দেয়া হয়েছে। বিআরটির এয়ারপোর্ট উত্তরা টঙ্গী গাজীপুর ময়মনসিংহ মহাসড়কে যানজটের যাত্রী দুর্ভোগ কমাতে এবং টঙ্গী তুরাগ নদীর উপরের শত বছরের পুরাতন সেতুটি ভেঙে নতুন সেতু নির্মাণ কাজের জন্য মূলত একমূখী উড়াল সড়কটি খুলে দেয়া হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি শুধু সরকারের সমালোচনাই করতে জানে। তারা আওয়ামী লীগের উন্নয়নের জোয়ার চোখে দেখেনা। এরশাদ সাহেব রাস্তাঘাটের উন্নয়নে তাঁর শাসনামলে কিছু করলেও বিএনপির শাসনামলে দৃশ্যমান কোন কিছু করেনি বিএনপি। আন্দোলনে সরকার পরিবর্তন হবে না, নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার পরিবর্তন হবে। আগামী নির্বাচনে অংশ গ্রহন করুন। জনগনই রায় দিবে কারা সরকারে গঠন করবে।

ঢাকা টঙ্গী গাজীপুর ময়মনসিংহ সড়কের আংশিক উড়াল সড়ক যানচলাচলের জন্য খুলে দেয়া উপলক্ষে টঙ্গীর আশরাফ গেট বরাবর উড়াল সড়কের উপর আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের বক্তব্যে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। রবিবার টঙ্গী স্টেশন রোড থেকে উত্তরা হাউজ বিল্ডিং পর্যন্ত সোয়া ২ কিলোমিটারের উড়াল সেতুটি খুলে দেয়ার পর সব ধরনের যানবাহন চলাচল শুরু হয় সোয়া দুই কিলোমিটারের এই উড়াল সড়কটিতে।

দু’লেনের উড়াল সড়কটি দিয়ে শুধু মাত্র ঢাকা মুখী যানবাহন চলাচল করতে পারবে। বিআরটি উড়াল সড়কের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খাঁন, ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র আতিকুল ইসলাম, গাজীপুর সিটির ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরন, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি, সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী ইলিয়াস আহমেদ, নীলিমা আক্তার লিলি, গাজীপুর মহানগর পুলিশ কমিশনার মোল্লা নজরুল ইসলাম, ট্রাফিকের উপপুলিশ কমিশনার আলমগীর হোসেনসহ সড়ক ও সেতু মন্ত্রণালয়ের উর্ধতন কর্মকর্তারা।

অনুষ্ঠানে সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, বিআরটির নির্মাণ কাজ নিয়ে সমালোচনার শেষ ছিলনা। মানুষের অন্তহীন দুর্ভোগ ছিল বর্ননাতীত। যানজটে পড়ে বিমানের ফ্লাইট পর্যন্ত মিছ হয়েছে অনেক বিমান যাত্রীর। ইতিমধ্যে বিআরটির ৮০% কাজ শেষে হয়ে গেছে। আর দুর্ভোগ পোহাতে হবে না বলে তিনি বলেন, সব কিছুর জন্য আমি দুঃখ প্রকাশ করছি। ৮০% কাজ শেষ। আগামী মে জুন মাসের মধ্যে বাকি ২০% কাজ শেষ হলে বিআরটি সড়ক পুরোপুরি খুলে দেয়া হবে।

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি বলেন, আমাদের টঙ্গী গাজীপুরবাসীর মহাভোগান্তি শেষ হতে চলেছে। এদিকে যানবাহন চলাচলে উড়াল সেতু খুলে দেয়ার পর টঙ্গী স্টেশনরোড অংশে দায়িত্বরত ট্রাফিক সার্জেন্ট তারেক দিপু বলেন, টঙ্গী উত্তরা উড়াল সড়ক আজ চালুর মাধ্যমে যাত্রী চালকদের মহাদূর্ভোগের অবসান হলো।

ময়মনসিংহ থেকে আসা এনা পরিবহনের বাস চালক সাইফুল ইসলাম বলেন, আংশিক উড়াল সড়ক চালু হওয়ায় ময়মনসিংহ গাজীপুর টঙ্গী উত্তরা এয়ারপোর্ট সড়কে যানজটের দুর্ভোগ প্রায় শূন্যে নেমে এসেছে। বাসযাত্রী আলাওল জানান, টঙ্গী থেকে উত্তরা পৌঁছাতে তাঁর সময় লেগেছে মাত্র ৪ থেকে ৫ মিনিট। টঙ্গী পশ্চিম থানার ওসি শাহ্ আলম বলেন, উড়াল সেতুর আংশিক চালুর মাধ্যমে টঙ্গীবাসীসহ ১৬ টি রুটের হাজারো মানুষ আজ নতুন একটা কিছু পেল। আগে যেখানে ২/৩ কিলোমিটারের সড়ক পাড়ি দিতে সময় লাগতো ২/৩ ঘন্টার উপরে। এখন সেখানে লাগছে মাত্র কয়েক মিনিট।

বিআরটি কর্তৃপক্ষ জানাচ্ছে, ২০ দশমিক পাঁচ কিলোমিটার দীর্ঘ বিআরটি লেনের সাড়ে চার কিলোমিটার ব্যাপী থাকবে উড়াল সড়ক। বাকি ১৬ কিলোমিটার লেন মাটির সমতলে নির্মিত। মাঝে তুরাগ নদীতে রয়েছে ১৭৫ মিটার দীর্ঘ ১০ লেনের টঙ্গী সেতু। সেতু ও ফ্লাইওভার নির্মাণ করছে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ।

এ অংশের প্রকল্প পরিচালক মহিরুল ইসলাম খান জানিয়েছেন, উত্তরা থেকে টঙ্গী স্টেশন রোড পর্যন্ত উড়াল সড়কের দৈর্ঘ্য দুই দশমিক দুই কিলোমিটার। প্রকল্পটি ২০১২ সালে সরকারের অনুমোদন পায়। পুরো নির্মাণ কাজ শেষ হলে, বিআরটির পদ্ধতিতে সড়কের মাঝখানে দুই লেনে চলবে শুধু বিশেষায়িত বিআরটির বাস।

২০১৬ সালে বিআরটি চালুর পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে। নির্মাণ কাজের কারণে চার বছর ধরে চরম দুর্ভোগ চলছে ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কের উত্তরা থেকে জয়দেবপুর অংশে। গত সপ্তাহে ভারী বৃষ্টিতে ডুবে যায় নির্মাণ এলাকা। বড় বড় গর্তে যানবাহন চলাচলে দুর্ভোগে পড়েন শত শত যানবাহনের হাজার লাখো যাত্রী সাধারণ। সোয়াশ’ কোটি টাকায় নির্মিত ড্রেনে পানি সরেনি রাস্তার মাঝখানের সড়ক উঁচু থাকায়। সড়কে বিশাল খানাখন্দ ও জলবদ্ধতায় টানা ৫ দিন দীর্ঘ যানজট হয় উত্তরা থেকে টঙ্গী জয়দেবপুর চৌরাস্তা সড়কে। ১২ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে সময় লাগে ৪/৫/৬ ঘন্টা পর্যন্ত। পরিস্থিতি এতটাই নাজুক হয়ে পড়ে যে, এই সড়ক এড়িয়ে চলতে পরামর্শ দেয় গাজীপুর মহানগর পুলিশ প্রধান। আজ থেকে এমন দুর্ভোগ আর নেই। কয়েক মিনিটেই পাড়ি দিতে পারছেন টঙ্গীর ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়ক।

নিউজটি শেয়ার করুন....

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও খবর
এই নিউজ পোর্টাল এর  কোন লেখা,ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি ও দণ্ডনীয় অপরাধ।
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102