• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০:১২ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
তথ্যপ্রযুক্তি খাতে করারোপ হচ্ছে না ঢাকায় ব্যাটারিচালিত রিকশা চলতে বাধা নেই টেলিটক, বিটিসিএলকে লাভজনক করতে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ ভারত থেকে ২শ কোচ কেনার চুক্তি বেসরকারি কোম্পানি চালাতে পারবে ট্রেন দেশে মাথাপিছু আয় বেড়ে ২৭৮৪ ডলার ৫ জুন বাজেট অধিবেশন শুরু চালু হচ্ছে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক শান্তি পুরস্কার বুদ্ধ পূর্ণিমা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা বার্তা পাঠ করলেন বিপ্লব বড়ুয়া ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক নিত্যপণ্যের বাজার কঠোর মনিটরিংয়ের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর উত্তরা থেকে টঙ্গী মেট্রোরেলে হবে নতুন ৫ স্টেশন এমপিও শিক্ষকদের জন্য আসছে আচরণবিধি সরকার ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে কাজ করছে: পরিবেশমন্ত্রী বাংলাদেশে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণে আগ্রহী কানাডা মেট্রোরেলে ভ্যাট এনবিআরের ভুল সিদ্ধান্ত ২৫ মে বঙ্গবাজার কমপ্লেক্সের নির্মাণ কাজের উদ্ভোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী সাগরে মাছ ধরা ৬৫ দিন বন্ধ বান্দরবানে যৌথ বাহিনীর অভিযানে তিনজন নিহত বঙ্গবন্ধু ‘জুলিও কুরি’ পদক নীতিমালা মন্ত্রিসভায় উঠছে

ড্যাপের ৩০ ভাগ বাস্তবায়ন হলেও বদলে যাবে ঢাকা

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ৫৮ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : রবিবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২২

 

ঢাকা মহানগর বিশদ অঞ্চল পরিকল্পনার (ড্যাপ) ৩০ ভাগ বাস্তবায়ন হলে ঢাকার চেহারা বদলে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন নগর পরিকল্পনাবিদরা। শনিবার বাংলামোটরে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্সের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ‘পরিকল্পিত জনঘনত্ব, বাসযোগ্য নগর ও আগামীর বাংলাদেশ ‘শীর্ষক আলোচনাসভায় তারা এ মন্তব্য করেন। এ সময় নগর পরিকল্পনাবিদরা বলেন, বাংলাদেশে নগর উন্নয়ন কাজ পরিচালনায় পরিকল্পনাকে সম্মান জানানো হয় না ও বাস্তবায়ন হয় না।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রেখে বিআইপির সভাপতি পরিকল্পনাবিদ ফজলে রেজা সুমন বলেন, বাংলাদেশ সরকারের টাকায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ২০০৮ সাল থেকে ২০১২ সাল থেকে ২০০ পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

এর মধ্যে মাত্র পাঁচটি প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে। তাও প্রধানমন্ত্রীর নিজস্ব প্রচেষ্টায়। আমাদের দেশে পরিকল্পনার প্রতি অসম্মান আজকে নয় অনেক আগে থেকেই করা হচ্ছে। নিজেদের করা পরিকল্পনা নিজেরাই অসম্মান করছেন। পরিকল্পনা হলেই বাস্তবায়ন হয় না।

তিনি বলেন, ড্যাপের ৩০ ভাগ বাস্তবায়ন করলে ঢাকা শহরের চেহারা বদলে যাবে। রাজশাহীর জন্য ২০০৪-২০২৪ যে পরিকল্পনা করা হয়েছিল তার মাত্র ৩০-৩১ ভাগ বাস্তবায়ন করেছে। আর তাতেই বদলে গেছে রাজশাহী শহর। রাজশাহী সিটি করপোরেশন ও উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ একসাথে পরিকল্পনা কাজ বাস্তবায়ন করেছে। রাজশাহীকে এখন পায়ে হাঁটার নগরী বলা হচ্ছে।

২০৪১ সালে উন্নত দেশের পথনকশা করতে হলে কারা করবে যেখানে স্থপতি দরকার সেখানে স্থপতি যেখানে পরিকল্পনাবিদ দরকার সেখানে পরিকল্পনাবিদ নিয়োগ করতে হবে।

রাজউক চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান মিঞা বলেন, এখন থেকে প্রতি তিন মাসে একবার বসে ড্যাপ বাস্তবায়নে প্রায়োধিকার প্রকল্প নির্ধারণ করবে। ড্যাপে প্রস্তাবিত ব্লক ভিত্তিক উন্নয়ন করে উদাহরণ তৈরি করতে হবে। তাহলে অন্যরা আগ্রহী হবে। ‘

তিনি আরো বলেন, ‘মানুষের শহরের দিকে ঝুকছে। স্কুল, বাসস্থান ও চিকিৎসা সেবা যদি গ্রামে নিশ্চিত করা যায় তবে কেউ শহরমুখি হবে না। দেশকে জলবায়ুর প্রভাবমুক্ত থাকতে হলে জনঘনত্ব ঠিক রাখতে হবে। আর অবশ্যই পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করতে হলে বৃষ্টির পানির নিচে নিতে হবে। ‘

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শরীফ আহমেদ বলেন, বিআইপি তাদের গবেষণা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালানোর জন্য একটি একাডেমি নির্মাণ করার জন্য জায়গা বরাদ্দ চেয়েছে। আমি রাজউক চেয়ারম্যান কে নির্দেশনা দিয়েছি জমি বরাদ্দ করার জন্য।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিআইপির সাধারণ সম্পাদক পরিকল্পনাবিদ শেখ মুহম্মদ মেহেদী আহসান। মূল প্রবন্ধের ওপর আলোচনা করেন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. আলি আখতার হোসেনসহ অন্যান্যরা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর