• শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
এবার চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় জ্বালানি তেল যাবে পাইপ লাইনে কাতারের আমির আসছেন সোমবার রাজস্ব ফাঁকি ঠেকাতে ক্যাশলেস পদ্ধতিতে যাচ্ছে এনবিআর বাংলাদেশে দূতাবাস খুলছে গ্রিস বঙ্গবন্ধু টানেলে পুলিশ-নৌবাহিনী-ফায়ার সার্ভিসের জরুরি যানবাহনের টোল মওকুফ সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীতে আসছেন আরও ৪ লাখ মানুষ ৫০ বছরে দেশের সাফল্য চোখে পড়ার মতো চালের বস্তায় জাত, দাম উৎপাদনের তারিখ লিখতেই হবে মন্ত্রী-এমপির প্রার্থীদের সরে দাঁড়ানোর নির্দেশ প্রাণী ও মৎস্যসম্পদ উন্নয়নে বেসরকারি খাত এগিয়ে আসুক ফের আশা জাগাচ্ছে লালদিয়া চর কনটেইনার টার্মিনাল ‘মাই লকারে’ স্মার্টযাত্রা আগামী সপ্তাহে থাইল্যান্ড সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতির ওপর নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ব্যাংকের আমানত বেড়েছে ১০.৪৩ শতাংশ বঙ্গবাজারে দশতলা মার্কেটের নির্মাণ কাজ শুরু শিগগিরই বেঁচে গেলেন শতাধিক যাত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব না খাটানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর মুজিবনগর দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী

জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধিতে দুশ্চিন্তায় উবার-পাঠাও চালকরা

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ৫৮ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : শনিবার, ৬ আগস্ট, ২০২২

দেশব্যাপী জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় দুশ্চিন্তায় পড়েছেন রাইড শেয়ারিং মোটরসাইকেল চালকরা। শনিবার (৬ আগস্ট) রাজধানীর বেশ কয়েকজন উবার ও পাঠাও চালকদের সঙ্গে কথা বললে তারা এই তেলের দাম বাড়ায় ভীষণ ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

রাজধানীর গুলশান-বাড্ডা লিংক রোড থেকে আগারগাঁও যাবেন মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বিন্দু। দাঁড়িয়ে থাকা এক মোটরসাইকেল চালককে কত নিবেন জানতে চাইলে তিনি ১৮০ টাকা চেয়ে বসেন। পরে দরকষাকষির মাধ্যমে দেড়শ টাকা বললেও যেতে রাজি হোন না রাইড শেয়ারিং করা ওই মোটরসাইকেল চালক।

মো. ইক্রামুল হক নামে ওই চালক সাংবাদিকদের বলেন, আগের ভাড়াই ছিল দেড়শ টাকা। আজকে ৪০ টাকা বেশি দিয়ে তেল কিনছি। ত্রিশ টাকা বেশি চাইছি। অথচ উনি আগের ভাড়াতেই যাইতে চান। এ জন্যই আমি যাইতে পারিনি। সকালে পাম্প থিকা ২০০ টাকার তেল নিছি। এখন পর্যন্ত একজনও যাত্রী পাইনাই। একটু বেশি চাই বলে অনেকেই রাগারাগি করে চলে যাচ্ছেন। আমার আর কি করার আছে। তেলের দাম বাড়লে ভাড়াত বাড়বই।

মহাখালীর আমতলী মোড়ে দাঁড়িয়ে আছে বেশকিছু মোটরসাইকেল। এমন সময় হঠাৎ এক নারী রেগে উঠেন। বললেন, আগে ৮০ টাকা দিয়ে যাইতাম। এখন ১২০ টাকা কেন?

পরে রাগারাগির কারণ জানতে চাইলে মো. রকোনুজ্জামান সানি নামে এক পাঠাও চালক বলেন, মহাখালী থেকে উনি কারওয়ান বাজার যেতে চান। তিনিই আমাকে ৮০ টাকা বলেছেন। কিন্তু আমি তাকে ১২০ টাকা বলছি, তাতে উনি যাবেন না।

তেলের দাম বাড়াতে ক্ষোভ জানিয়ে এই চালক বলেন, কিছুই করার নাই। আমরা ভাড়া বেশি চাই বলে জনগণ রাগ করে। আবার কম নিলেও খরচ উঠে না। কি আর করার, ইনকামও অর্ধেক হবে।

এমন সময় পাশে দাঁড়িয়ে থাকা আরও এক রাইড শেয়ারিং চালক বলেন, অনেকেই এসে বলে অ্যাপসে যাবে। কিন্তু তেলের দাম বাড়ছে, অ্যাপ তো এখন আপডেট হয়নাই। এ জন্য আমাদেরই বিপদ হইছে। অনেকে আবার দরদাম করেন ঠিকি; কিন্তু ভাড়া শুনে আর যেতে রাজি হন না।

এ দিকে শুক্রবার (৫ আগস্ট) মধ্যরাত থেকেই কার্যকর হয়েছে সরকার ঘোষিত ডিজেল, পেট্রল, কেরোসিন, ও অকটেনের নতুন দাম। দাম বেড়েছে প্রতি লিটার ডিজেলে ৩৪, কেরোসিনে ৩৪, অকটেনে ৪৬, পেট্রলে ৪৪ টাকা। দাম বাড়ার পর প্রতি লিটার ডিজেল ১১৪ টাকা, কেরোসিন ১১৪ টাকা, অকটেন ১৩৫ টাকা ও প্রতি লিটার পেট্রল ১৩০ টাকায় কিনতে হচ্ছে।

আগে ভোক্তা পর্যায়ে খুচরা মূল্য ছিল প্রতি লিটার ডিজেল ৮০ টাকা, কেরোসিন ৮০ টাকা, অকটেন ৮৯ টাকা ও পেট্রল ৮৬ টাকা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর