• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১১:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
তথ্যপ্রযুক্তি খাতে করারোপ হচ্ছে না ঢাকায় ব্যাটারিচালিত রিকশা চলতে বাধা নেই টেলিটক, বিটিসিএলকে লাভজনক করতে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ ভারত থেকে ২শ কোচ কেনার চুক্তি বেসরকারি কোম্পানি চালাতে পারবে ট্রেন দেশে মাথাপিছু আয় বেড়ে ২৭৮৪ ডলার ৫ জুন বাজেট অধিবেশন শুরু চালু হচ্ছে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক শান্তি পুরস্কার বুদ্ধ পূর্ণিমা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা বার্তা পাঠ করলেন বিপ্লব বড়ুয়া ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক নিত্যপণ্যের বাজার কঠোর মনিটরিংয়ের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর উত্তরা থেকে টঙ্গী মেট্রোরেলে হবে নতুন ৫ স্টেশন এমপিও শিক্ষকদের জন্য আসছে আচরণবিধি সরকার ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে কাজ করছে: পরিবেশমন্ত্রী বাংলাদেশে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণে আগ্রহী কানাডা মেট্রোরেলে ভ্যাট এনবিআরের ভুল সিদ্ধান্ত ২৫ মে বঙ্গবাজার কমপ্লেক্সের নির্মাণ কাজের উদ্ভোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী সাগরে মাছ ধরা ৬৫ দিন বন্ধ বান্দরবানে যৌথ বাহিনীর অভিযানে তিনজন নিহত বঙ্গবন্ধু ‘জুলিও কুরি’ পদক নীতিমালা মন্ত্রিসভায় উঠছে

কমবে যানজট ও ভোগান্তি

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ৪৩ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

কালশী উড়ালসেতু উদ্বোধন কাল : মিরপুরের কালশীতে ২.৩৪ কিলোমিটার দীর্ঘ উড়ালসেতুটি আগামীকাল রবিবার খুলে দেওয়া হচ্ছে চলাচলের জন্য। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই উড়ালসেতু উদ্বোধন করবেন। এটি চালু হলে মিরপুরের সঙ্গে বনানী, উত্তরা ও রাজধানীর পূর্বাংশের যোগাযোগ আরো সহজ হবে। উড়ালসেতু থেকে নামলেই মিরপুর ইসিবি চত্বর থেকে কালশী পর্যন্ত নির্মিত ছয় লেনের আধুনিক সড়ক দিয়ে খুব কম সময়ে মিরপুর থেকে পৌঁছা যাবে বিমানবন্দরে। ছবি : লুৎফর রহমান

রাজধানীতে সহজে যাতায়াতের জন্য মিরপুরের কালশীতে নির্মিত হয়েছে ঢাকার সপ্তম ফ্লাইওভার। দৃষ্টিনন্দন ফ্লাইওভারটি চালু হলে মিরপুরবাসীর কষ্ট অনেকটা লাঘব হবে। মিরপুরের সঙ্গে বনানী, উত্তরা ও রাজধানীর পূর্বাংশের যোগাযোগ আরো সহজ হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

ফ্লাইওভার থেকে নামলেই মিরপুরের ইসিবি চত্বর পর্যন্ত নির্মিত ছয় লেনের আধুনিক সড়ক দিয়ে খুব কম সময়ে পৌঁছানো যাবে বিমানবন্দর। এখন শুধু আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের অপেক্ষা, যা শেষ হচ্ছে আগামীকাল। এদিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘ইসিবি চত্বর থেকে মিরপুর পর্যন্ত সড়ক প্রশস্তকরণ, উন্নয়ন ও কালশী মোড়ে ফ্লাইওভার নির্মাণ’ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন।

এত দিন আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন না করায় ফ্লাইওভার বন্ধ ছিল। তবে নিচের প্রশস্ত রাস্তা চালু করায় তার সুফল পাচ্ছিল মিরপুরের বাসিন্দারা। সড়ক প্রশস্ত হওয়ায় যানজট হচ্ছে না। ফ্লাইওভারেও ভালো সুফলের আশা করছে মিরপুরবাসীসহ সড়ক ব্যবহারকারীরা।

প্রকল্পসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, ইসিবি চত্বর থেকে কালশী ও মিরপুর ডিওএইচএসমুখী ২.৩৪ কিলোমিটার দীর্ঘ চার লেনের এই ফ্লাইওভারের র্যাম্প রয়েছে পাঁচটি। মিরপুর ডিওএইচএস প্রান্ত এবং ইসিবি চত্বরের দিকের প্রান্ত থেকে ফ্লাইওভারে ওঠা যাবে। কালশী রোড প্রান্ত দিয়ে শুধু নামার সুযোগ রয়েছে। ফ্লাইওভারের নিচে প্রশস্ত করা রাস্তার দৈর্ঘ্য ৩.৭ কিলোমিটার, যা মাটিকাটা এলাকার ইসিবি চত্বর থেকে শুরু হয়ে কালশী মোড় থেকে মিরপুর ডিওএইচএসে চলে গেছে। প্রকল্পটি যৌথভাবে বাস্তবায়ন করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ২৪ ইঞ্জিনিয়ারিং ব্রিগেড ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন। এটির বাস্তবায়নে ব্যয় হয়েছে এক হাজার ১২ কোটি ১১ লাখ টাকা। এই প্রকল্পের আওতায় দুটি ফুট ওভারব্রিজ নির্মাণ, একটি পিসি গার্ডার ব্রিজ সম্প্রসারণ, একটি পাবলিক টয়লেট নির্মাণ, দুটি পুলিশ বক্স, ৭.৪০ কিলোমিটার আরসিসি ড্রেন ও সসার ড্রেন নির্মাণ, ১.৭৬ কিলোমিটার পাইপ ড্রেন নির্মাণ, সাইকেলের জন্য আলাদা লেন এবং ছয়টি বাস ও যাত্রীছাউনি করা হয়েছে।

ডিএনসিসি সূত্র জানিয়েছে, ওই এলাকায় মিরপুর সেনানিবাস, চিড়িয়াখানা, সেনাবাহিনীর আবাসন, অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম রয়েছে। মিরপুরের যাতায়াত সহজ করতে আগেই নতুন সড়ক ও সেনানিবাস এলাকায় উড়ালসড়ক নির্মাণ করা হয়েছিল। এতে মিরপুরে যাতায়াতে সড়কটির ব্যবহার অনেক বেড়ে যায়। তবে কালশী মোড় এলেই প্রায় যানজট হতো। কারণ সড়কটি অপ্রশস্ত ছিল। এখন ওই পথ দৈনিক এক লাখ যানবাহনের চাপ সামলাতে পারবে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘ইসিবি চত্বর থেকে মিরপুর পর্যন্ত সড়ক প্রশস্তকরণ, উন্নয়ন ও কালশী মোড়ে ফ্লাইওভার নির্মাণ মিরপুরবাসীর জীবনে বড় ধরনের ইতিবাচক পরিবর্তন আনবে। প্রকল্পটির কাজ চলতি বছরের জুন মাসে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও করোনা ও পরবর্তী সময়ে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যেও আমরা নির্দিষ্ট সময়ের আগে কাজ শেষ করতে পেরেছি।’

মেয়র আরো বলেন, ‘রাজধানীর সড়ক ও যান চলাচল ব্যবস্থায় কালশী ফ্লাইওভার একটি নতুন দিক উন্মোচন করবে। এখন আর মিরপুর থেকে এয়ারপোর্ট যেতে ভোগান্তি পোহাতে হবে না। এ ছাড়া মিরপুরের সঙ্গে অন্যান্য এলাকার যোগাযোগও সহজ হবে এই ফ্লাইওভারের মাধ্যমে।’

কালশী ফ্লাইওভারকে ঢাকাবাসীর জন্য বসন্তের উপহার উল্লেখ করে আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘শুধু ফ্লাইওভার নয়, কালশীতে যানজটের পাশাপাশি জলজট দূর করতে আমরা খাল পরিষ্কার করেছি। আর এসব সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বের কল্যাণে। ফ্লাইওভারটি মিরপুর ও ঢাকাবাসীর জন্য প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে বসন্তের উপহার। এই সুন্দর প্রকল্পটির দিকে সবার নজর রাখতে হবে, যাতে প্রশস্ত সড়ক ও ফুটপাত অবৈধভাবে দখল না হয়। এটি শুধু সিটি করপোরেশনের কাজ নয়, সাধারণ মানুষকেও এসব বিষয়ে ভূমিকা রাখতে হবে।’

গতকাল শুক্রবার ছুটির দিনে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ফ্লাইওভারের নিচের অংশে নানা রকম ফুলের গাছ লাগানো হয়েছে। আশপাশের সড়কের নির্দেশনার জন্য লাগানো হয়েছে রোড সাইন। সড়ক পরিবর্তনের জন্যও পরিকল্পিতভাবে করা হয়েছে ইউটার্নের ব্যবস্থা। ওপরে ফ্লাইওভার, নিচে দৃষ্টিনন্দন পরিবেশ এরই মধ্যে সাধারণ মানুষের নজর কাড়ছে। এ ছাড়া ইসিবি চত্বর থেকে মিরপুর পর্যন্ত সড়ক বিভাজকে লাগানো সবুজ ঘাস ও নানা রকম বাহারি ফুলের গাছের সামনেও অনেককেই ছবি তুলতে দেখা গেছে। তবে গত কয়েক বছর সড়ক ও ফ্লাইওভার উন্নয়নকাজে মিরপুর থেকে উত্তরা, গুলশান, বনানী যেতে ভোগান্তি ভুলে এবার সবাই শান্তির কথা বলছে।

আরিফুর রহমান নামের মিরপুর ১১ নম্বর সেকশনের এক শিক্ষার্থী বন্ধুদের নিয়ে দেখতে আসেন নতুন এই যাত্রা। আরিফ বলেন, ‘উন্নয়নকাজের কারণে কয়েক বছর মিরপুর থেকে উত্তরা, গুলশান, বনানী যেতে ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। কয়েক দিন পর শুনেছি প্রধানমন্ত্রী ফ্লাইওভার আর রাস্তা উদ্বোধন করবেন। তাই একটু আগেই বন্ধুদের নিয়ে চলে এলাম।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর