• রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
পতেঙ্গা সৈকত ঘিরে মাস্টার প্ল্যান তৈরিসহ একগুচ্ছ সিদ্ধান্ত কর্মপরিধি বাড়ছে জাতীয় হেল্পলাইন কল সেন্টারের উত্তরের যোগাযোগে আসবে গতি চট্টগ্রাম বন্দরে এক বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবে আবুধাবি পোর্ট গ্রুপ হেমায়েতপুরে হবে বহুতল টার্মিনাল চাহিদার চেয়ে ২৩ লাখের বেশি পশু প্রস্তুত দেশকে আরও এগিয়ে নিতে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই: পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ছিল একটা জাগরণ : নানক শেখ হাসিনাকে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন বৈদেশিক ঋণের প্রকল্পে বিশেষ নজর দিতে নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ দেশি শিং মাছের জিনোম সিকোয়েন্স উন্মোচনে সফলতা একক গ্রাহকের ঋণসীমা অতিক্রম না করতে নির্দেশ ব্যাংকগুলোকে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নীতিমালা প্রকাশ রপ্তানি আয়ের লক্ষ্য ১১০ বিলিয়ন ডলার ২-৩ বছরের মধ্যে মহাকাশে যাবে বাংলাদেশের দ্বিতীয় স্যাটেলাইট প্রত্যাশা নতুন অধ্যায়ের বিপিসির এলপি গ্যাস বটলিং প্ল্যান্ট আধুনিকায়ন, জুনে চালু রাজধানীতে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলবে না সেমিকন্ডাক্টর খাতে ১০ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয়ের সম্ভাবনা

ই-জিপিতে বছরে আয় ৪৫০ কোটি টাকা

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ৫৩ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : শুক্রবার, ৩০ ডিসেম্বর, ২০২২

সরকারি কেনাকাটায় ডিজিটাল পদ্ধতি ই-গভর্নমেন্ট প্রকিউরমেন্ট পোর্টাল (ই-জিপি) ব্যবহারের ফলে বছরে ৪৫০ কোটি টাকা আয় করেছে সরকার। একই সঙ্গে ৬০ কোটি ডলার বা ছয় হাজার কোটি টাকার মতো সাশ্রয় হচ্ছে। পরিবেশ সুরক্ষা থেকেও বড় ধরনের সাশ্রয়ী সুবিধা পাওয়া গেছে। সব হিসাব আমলে নিলে ই-জিপির আর্থিক অবদান আরও অনেক বেশি।

বৃহস্পতিবার বিভিন্ন গণমাধ্যমকর্মীর সঙ্গে মতবিনিময়ে ই-জিপির মাধ্যমে এসব সাশ্রয় এবং অন্যান্য সুবিধার কথা তুলে ধরেন পরিকল্পনা কমিশনের সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিটের (সিপিটিইউ) মহাপরিচালক মোহাম্মাদ সোহেলার রহমান চৌধুরী। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সিপিটিইউ সভাকক্ষে এ আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) বিদায়ী সচিব আবু হেনা মোরশেদ জামান প্রধান অতিথি ছিলেন। তিনি বলেন, ই-জিপির মাধ্যমে সরকারি কেনাকাটায় গুণগত পরিবর্তন এসেছে। গোটা প্রক্রিয়াই এখন কাগজবিহীন। ইতোমধ্যে আইএসও সনদ ও ডিরেক্টর অ্যাওয়ার্ড এর বড় অর্জন। পৃথিবীর অনেক দেশকে বাংলাদেশের ই-জিপি কার্যক্রম অনুসরণের পরামর্শ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। তবে করোনার মতো সংকটকালে ই-জিপি প্রক্রিয়া আরও কীভাবে মসৃণরূপে কাজ করতে পারে, সে বিষয়ে চিন্তাভাবনা করতে সিপিটিইউ কর্মকর্তাদের পরামর্শ দেন তিনি।

ই-জিপির অন্যান্য সুবিধার কথায় সিপিটিইউ মহাপরিচালক বলেন, বর্তমানে ই-জিপি মাধ্যমে টেন্ডার প্রক্রিয়া ১০০ দিনের পরিবর্তে মাত্র ৫৮ দিনে করা সম্ভব হচ্ছে। দরদাতাদের ৪৯৭ মিলিয়ন কিলোমিটার ভ্রমণ দূরত্ব কমেছে; ১ হাজার ৫৩ মিলিয়ন পাতা কাগজ সাশ্রয় হয়েছে এবং ১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৫৯ টন কার্বন নিঃসরণ কম হয়েছে। এ সংক্রান্ত অন্যান্য তথ্য এবং সুযোগ-সুবিধার কথা তুলে ধরেন তিনি। সিপিটিইউর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মতবিনিময়ে অংশ নেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর