• শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
ঈদের ২য় দিনে শতভাগ কোরবানির বর্জ্য অপসারণ ডিএনসিসির বিসিক চামড়া শিল্প নগরীর সিইটিপি প্রস্তুত : শিল্প সচিব আজ থেকে নতুন সময়সূচিতে চলবে সরকারি অফিস হাসপাতাল ভিজিট করে ডাক্তার হিসেবে লজ্জা লাগছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবার আছাদুজ্জামানের দুর্নীতি তদন্তে নামছে দুদক? কবি অসীম সাহার মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সেন্টমার্টিন দ্বীপ নিয়ে স্বার্থান্বেষী মহলের গুজবে বিভ্রান্ত হবেন না: আইএসপিআর ঈদ কেন্দ্র করে বাড়ল রিজার্ভ চামড়া কেনায় মিলছে ২৭০ কোটি টাকা ঋণ দুই সিটিতে কুরবানির বর্জ্য অপসারণে প্রস্তুত ১৯ হাজার কর্মী দুর্নীতি করে, কাউকে ঠকিয়ে সফল হওয়া যায় না: এলজিআরডি মন্ত্রী আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী বিজিবি পুলিশকে সতর্ক থাকার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে স্মার্ট হচ্ছে কৃষি জুনের ১২ দিনে প্রবাসীরা ১৪৬ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন পদ্মা সেতুতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ, বঙ্গবন্ধুতে নতুন রেকর্ড পাস হতে পারে ঋণের কিস্তি ছাড়ের প্রস্তাব সারা দেশে অভিযানের নির্দেশ জনশক্তি নিতে আজারবাইজানকে অনুরোধ সরে গেছে মিয়ানমারের জাহাজ

অবকাঠামো উন্নয়ন ও আয় হচ্ছে সমান গতিতে

সিরাজগঞ্জ টাইমস / ৪২ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে পায়রা সমুদ্র বন্দরের প্রথম টার্মিনালের নির্মাণকাজ। এটি চালু হলে পূর্ণাঙ্গ বন্দর হিসেবে এই সমুদ্র বন্দরের টার্মিনালে কন্টেইনার পরিবহণসহ অন্যান্য পণ্য আমদানি-রপ্তানির সুযোগ তৈরি হবে। এ বছরের জুনে বন্দরের প্রথম টার্মিনালসহ প্রকল্পটি শেষ করার সময়সীমা নির্ধারিত থাকলেও সেটা শেষ হচ্ছে না। তবে ২০২৩ সালে বিগত বছরের থেকে ১৫ গুণ বেশি আয় করতে চায় বন্দর কর্তৃপক্ষ।

২০১৩ সালের ১৯ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পায়রা সমুদ্র বন্দরের ফলক উন্মোচন করেন। আর ২০১৬ সালের ১৩ আগস্ট বন্দরের আনুষ্ঠানিক পণ্য খালাস কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন তিনি। সেই থেকে শুরু করে ২০২২ সাল পর্যন্ত এই বন্দরের বহির্নোঙ্গরে ২৯১টি বিদেশি জাহাজ নোঙ্গর করে। যার মধ্যে ২২৬টি জাহাজে পায়রা তাপবিদু্যৎ কেন্দ্রের কয়লা এবং ৬৫টি জাহাজে অন্যান্য পণ্য পরিবহণ করা হয়। এ বাবদ পায়রা বন্দরের আয় হয় ৬৭ কোটি ৭৫ লাখ ৭৯ হাজার ৩০৮ টাকা। আর কাস্টমস কর্তৃক আয় হয় ৬৮৯ কোটি ৩৫ লাখ ৬৫ হাজার ৪৮৭ টাকা।

এর মধ্যে ২০২২ সালে সব থেকে বেশি জাহাজ এই বন্দর ব্যবহার করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০২৩ সালকে পায়রা ‘বন্দরের বছর’ হিসেবে ঘোষণা করেছেন বন্দর চেয়ারম্যান। এ বছর গত বছরের থেকে ১৫ গুণ বেশি আয় করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি।

সম্প্রতি পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার রামনাবাদ পাড়ে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে চলছে পায়রা বন্দরের উন্নয়নের মহাযজ্ঞ। সাড়ে চার হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে এই বন্দরের জন্য প্রথম টার্মিনাল, ইয়ার্ড, ছয় লেনের সংযোগ সড়কসহ অনুষঙ্গিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার কাজ চলছে। কারও যেন দম ফেলার সুযোগ নেই। বন্দরের প্রকৌশলীসহ দেশি-বিদেশি কনসালট্যান্টরাও এখানে কাজ করছেন। চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এবং কোরিয়ান পরামর্শক প্রতিষ্ঠানগুলো এসব উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করছে।

পায়রা বন্দরের সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) এস এম ওমর ফারুক জানান, সার্ভিস জেটি এবং জেটি-সংলগ্ন সড়কের কাজ ৯৮ দশমিক ৫০ শতাংশ, ইয়ার্ড এবং জেটির কাজ ৬৭ শতাংশ, ছয় লেনের সংযোগ সড়ক ও ব্রিজের কাজ ৩৫ শতাংশ এবং বানতিপাড়া বাজার থেকে সংযোগ সড়ক পর্যন্ত ছয় লেনের সড়কের কাজ ৮৮ শতাংশ শেষ হয়েছে। এ ছাড়া টেন্ডার প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে- আন্দারমানিক নদীর ওপর ছয় লেনের সেতু নির্মাণের কাজ।

পায়রা বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ সোহায়েল বলেন, ‘পায়রা বন্দরে অপারেশন কার্যক্রমের পাশাপাশি নির্মাণকাজও চলছে। একটি বন্দরের নির্মাণকাজ বড় একটি বিষয়। একটি বন্দর রাতারাতি গড়ে ওঠে না, এটি গড়ে উঠতে সময় লাগে। গত সাত-আট বছরে পায়রা বন্দর অনেক দূর এগিয়ে গেছে এবং সেটা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর পৃষ্ঠপোকতা ও দিকনির্দেশনায়। সে কারণে যারা কাজ করছেন, তারাও আগ্রহ পাচ্ছেন। ইতোমধ্যে বন্দরে এক হাজারের অধিক শিপ হ্যান্ডেলিং করতে সক্ষম হয়েছেন, ২০২২ সালে তা তিন গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। আর ২০২৩ সালকে বলি পায়রা বন্দরের বছর। আমাদের চিন্তা থেকে এ বছর এই বন্দরে রেভিনিউ ইনকাম ১০-১৫ গুণ বেশি হবে। এ বছর আমরা এই বন্দরের প্রথম টর্মিনালটি চালু করব।’

এদিকে বন্দরের অবকাঠামো উন্নয়নের পাশাপাশি পায়রা বন্দরে জাহাজ প্রবেশের জন্য ক্যাপিটাল ড্রেজিংয়ের কাজও চলমান রয়েছে। বেলজিয়ামের ড্রেজিং প্রতিষ্ঠান জান ডে লুন এটি বাস্তবায়ন করছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর